• রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন
  • ই-পেপার
সর্বশেষ
যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়নে কমলেও নতুন বাজারে পোশাক রপ্তানি বাড়ছে স্বাধীনতাবিরোধীরা কোটা সংস্কার আন্দোলনের নামে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত: আইনমন্ত্রী বেনজীরের স্ত্রীর ঘের থেকে মাছ চুরির ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩ সচেতনতার অভাবে অনেক মানুষ বিভিন্ন দুরারোগ্য ব্যাধিতে আক্রান্ত: প্রধান বিচারপতি আইনশৃঙ্খলা লঙ্ঘনের কর্মকা- বরদাশত করা হবে না: ডিএমপি কমিশনার মিয়ানমারের শতাধিক সেনা-সীমান্তরক্ষী ফের পালিয়ে এলো বাংলাদেশে গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয়ে ডাকাতি, গ্রেপ্তার ৫ ঢাকায় ছয় ঘণ্টায় রেকর্ড ১৩০ মিলিমিটার বৃষ্টি, জলাবদ্ধতা নবম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণয়নে জাপানের সহায়তা চাওয়া হয়েছে: পরিকল্পনামন্ত্রী বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিতে চায় চীন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

খালাসের পরও কনডেম সেলে ৭ বছর: বিচারবিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ

Reporter Name / ৯০ Time View
Update : রবিবার, ৭ আগস্ট, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
হাইকোর্ট থেকে খালাসের পরও সাত বছর ধরে কনডেম সেলে থাকা আবুল কাশেমের বিষয়ে বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে আগামী ২৫ আগস্ট হাইকোর্টের রেজিস্টারের মাধ্যমে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। আজ রোববার বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. বশির উল্লাহর বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারোয়ার হোসেন বাপ্পী। এর আগে আবুল কাশেমের মুক্তি চেয়ে হাইকোর্টে স্ব:প্রণোদিত আদেশ দেওয়ার জন্য আর্জি জানানো হয়েছিল। একই সঙ্গে ঘটনার বিচারিক অনুসন্ধানের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছিল। এরপর আদালত রিট করার জন্য নির্দেশ দেন। তারই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই রিট করা হয়। পরে ওই বেঞ্চ থেকে বলা হয়, এই আবেদনের বিষয়ে গতকাল রোববার শুনানি হতে পারে। তারই ধারাবাহিকতায় সেটি শুনানি হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে এ বিষয়ে একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত প্রতিবেদন উচ্চ আদালতের নজরে আনেন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, চট্টগ্রামের লোহাগড়া থানার জানে আলম হত্যা মামলা থেকে বেকসুর খালাস পান আবুল কাশেম। তার খালাস পাওয়ার আদেশ যথা সময়ে উচ্চ আদালত থেকে অতিরিক্ত চট্টগ্রাম জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালতে যায়। কিন্তু সাত বছর তিন মাস ১১ দিনেও আদেশ কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছায়নি। এর আগে ২০১৫ সালের ১৪ এপ্রিল একটি মামলায় অতিরিক্ত চট্টগ্রাম জেলা ও দায়রা জজ প্রথম আদালত হাজিরা দিতে আসলে আবুল কাশেমকে শোন অ্যারেস্ট দেখিয়ে কারাগারে পাঠান। সেই দিন থেকে কারাগারের কনডেম সেলে আছেন তিনি। আবুল কাশেম লোহাগড়া থানার আমিরাবাদ ইউনিয়নের রাজঘাটা আমিরখান চৌধুরী পাড়ার বেলায়েত আলীর ছেলে। আবুল কাশেমের ছেলে ইফতেখার হোসেন নোহাশ বলেন, আমার বাবা দীর্ঘদিন বিনা বিচারে কারাগারে আছেন। তার বিরুদ্ধে কোনো মামলা নেই। একটি মামলা ছিল, সেটাতেও জামিনে ছিলেন। আমার বাবার মুক্তি চাই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category