• শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১২:৪৭ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার
সর্বশেষ
ঈদযাত্রায় বাড়তি ভাড়া আদায় করলে ব্যবস্থা বেনজীরের অঢেল সম্পদে হতবাক হাইকোর্ট তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুয়েক সময় আমাদের ট্রলার-টহল বোটে মিয়ানমারের গুলি লেগেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম-নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান রাষ্ট্রপতির সহকর্মীকে হত্যাকারী কনস্টেবল মানসিক ভারসাম্যহীন দাবি পরিবারের বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী চেকিংয়ের জন্য গাড়ি থামানো চাঁদাবাজির অংশ নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সারা দেশে ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা কতজন জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট বান্দরবান থেকে কেএনএফের ৩১ জনকে পাঠানো হলো চট্টগ্রাম কারাগারে

চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য খালাস বন্ধ

Reporter Name / ২৩১ Time View
Update : শনিবার, ৬ নভেম্বর, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ডিজেল-কেরোসিনের দাম বাড়ার প্রতিবাদে চলমান পরিবহন ধর্মঘটে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে শনিবার দ্বিতীয় দিনের মতো বন্ধ ছিল পণ্য খালাস কার্যক্রম। সকাল থেকে বন্দরে পণ্য খালাসের কোনো গাড়ি ঢুকতে বা বের হতে দেখা যায়নি। তবে বন্দর থেকে বিভিন্ন ডিপোতে আমদানি-রপ্তানি পণ্য আনা-নেওয়া হয় এবং বন্দরের অভ্যন্তরীণ কার্যক্রম স্বাভাবিক ছিল। গত বুধবার রাতে বিদ্যুৎ, জ¦ালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়। নতুন দাম ভোক্তা পর্যায়ে ৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা করা হয়। যা কার্যকর হয় ওইদিন রাত ১২টা থেকে। এ নিয়ে পরদিন বৃহস্পতিবার পরিবহন খাতের বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে কোনো ধরনের পূর্বঘোষণা ছাড়াই গত শুক্রবার সকাল ছয়টা থেকে সারাদেশে পরিবহন ধর্মঘট কর্মসূচি পালন করছেন মালিক-শ্রমিকরা। জ¦ালানি তেলের বর্ধিত দাম না কমানো পর্যন্ত ধর্মঘট চলবে বলেও জানানো হয়েছে। এদিকে ধর্মঘটের কারণে দেশের প্রায় ৯২ ভাগ আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের নিয়ন্ত্রক চট্টগ্রাম বন্দরে গত শুক্রবার সকাল ছয়টা থেকে বন্ধ রয়েছে পণ্য খালাস কার্যক্রম। বন্দরে ইয়ার্ডে বর্তমানে কনটেইনার জমা রয়েছে ৩৬ হাজার টিইইউস (টুয়েন্টি ফিট ইক্যুইভেলেন্ট ইউনিটস)। আপাতত পণ্যজট না হলেও দ্রুত এ সমস্যার সমাধান না হলে সংকটের আশঙ্কা করছেন বন্দর সংশ্লিষ্টরা। বন্দর সচিব ওমর ফারুক বলেন, ধর্মঘটের কারণে বন্দরে দ্বিতীয় দিনের মতো পণ্য ডেলিভারি কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও বন্দরের অন্যান্য কাজ স্বাভাবিক রয়েছে। জাহাজে মালামাল লোড-আনলোড হচ্ছে। বন্দর থেকে মালামাল আনা-নেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন ডিপোতে। তিনি আরও বলেন, আপাতত খুব বেশি সমস্যা হচ্ছে না। বন্দরে আরও ১৪ হাজার টিইইউস কনটেইনার রাখা যাবে। তবে দ্রুত ধর্মঘট প্রত্যাহার না হলে পণ্যজট তৈরি হতে পারে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category