• বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪, ০৯:৫১ পূর্বাহ্ন
  • ই-পেপার
সর্বশেষ
সর্বোচ্চ আদালতকে পাশ কাটিয়ে সরকার কিছুই করবে না: আইনমন্ত্রী নাইজেরিয়ান চক্রের মাধ্যমে চট্টগ্রামে কোকেন পাচার কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের অপেক্ষা করতে বললেন ব্যারিস্টার সুমন পদ্মা সেতুর সুরক্ষায় নদী শাসনে ব্যয় বাড়ছে পিএসসির উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীরসহ ৬ জনের রিমান্ড শুনানি পিছিয়েছে শৃঙ্খলা ভঙ্গের চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: ডিএমপি কমিশনার রপ্তানিতে বাংলাদেশ ব্যবহার করছে না রেল ট্রানজিট রাজাকারের পক্ষে স্লোগান সরকারবিরোধী নয়, রাষ্ট্রবিরোধী: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়নি বঙ্গোপসাগরের জীববৈচিত্র্য নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র-আলোকচিত্র প্রদর্শনী

জায়েদ-নিপুণের মামলা: আপিল বিভাগে শুনানি ফের পিছিয়েছে

Reporter Name / ৭৩ Time View
Update : রবিবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ‘সাধারণ সম্পাদক’ পদ নিয়ে চিত্রনায়ক জায়েদ খান ও নায়িকা নিপুণ আক্তারের মামলার শুনানি আরও এক দফা পেছালো। আজ রোববার (২৩ অক্টোবর) শুনানির জন্য দিন ধার্য থাকলেও তা হয়নি। এ বিষয়ে শুনানির জন্যে আগামী সপ্তাহে নতুন দিন ধার্য করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদ নিয়ে নায়িকা নিপুণের বিরুদ্ধে করা আদালত অবমাননার অভিযোগটি শুনানির জন্য সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের কার্যতালিকায় (কজলিস্টে) ছিল। সেই মামলাটিরও শুনানি হয়নি গতকাল রোববার। চিত্রনায়িকা নিপুণের আইনজীবীর সময় আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল রোববার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন ৫ সদস্যের বিচারপতির আপিল বিভাগের নিয়মিত ও পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানি পিছিয়ে দিন ধার্য করেন। বেঞ্চের অন্য সদস্যরা হলেন- বিচারপতি নুরুজ্জামান, বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, বিচারপতি বোরহান উদ্দিন, বিচারপতি ও এম ইনায়েতুর রহিম। আদালতে এদিন জায়েদ খানের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. আহসানুল করিম ও অ্যাডভোকেট নাহিদা সুলতানা যুথি। নিপুণের পক্ষে ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন না। তাই সময় আবেদন করা হয়। আবেদনকারীপক্ষের সময়ের আরজির পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল রোববার আপিল বিভাগ ‘নট টুডে’ (আজ নয়) বলে আদেশ দেন। এ হিসাবে আগামী সপ্তাহের রোব অথবা সোমবার এসব বিষয়ের ওপর শুনানি হতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা। গত ৬ জুন আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে এ বিষয়ে শুনানি পিছিয়ে নতুন দিন ঠিক করেছিলেন। এর আগেও ২৩ মে শুনানি ৬ জুন পর্যন্ত মুলতবি করেছিলেন আপিল বিভাগ। ওইদিন দায়িত্বরত বিচারপতি নুরুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এর আগে গত ১৩ মার্চ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে চেম্বার আদালতের স্থিতাবস্থার আদেশ নিপুণ আক্তার ও জায়েদ খানকে কঠোরভাবে পালন করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে চার সপ্তাহের জন্য শুনানি মুলতবি করা হয়। পরবর্তীসময়ে প্রধান বিচারপতির অনুপস্থিতিতে আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. নুরুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ ২৫ এপ্রিল এক আদেশে শুনানি ২৩ মে পর্যন্ত মুলতবি করেন। এ অবস্থায় নির্ধারিত দিনে মামলাটি আপিল বিভাগের কার্যতালিকায় আসলে আদালত শুনানির দিন পিছিয়ে গতকাল রোববার দিন ঠিক করে দেন। গত ৮ মার্চ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে স্থিতাবস্থার আদেশের পরও সাধারণ সম্পাদকের চেয়ারে বসায় নিপুণের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদন করেন জায়েদ। গত ২৮ জানুয়ারি চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ২০২২-২৪ মেয়াদের নির্বাচন হয়। ফলাফল ঘোষণা করা হয় ২৯ জানুয়ারি। এতে ইলিয়াস কাঞ্চন সভাপতি ও জায়েদ খান সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপর থেকেই জায়েদকে বিজয়ী ঘোষণা করার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে আসছিলেন নিপুণ। নির্বাচনী ফল ঘোষণায় কারচুপির অভিযোগ আনেন নিপুণ। এরপর ওই ফল বাতিল চেয়ে আপিল বোর্ডের কাছে আবেদন করেন তিনি। এ আবেদনের ভিত্তিতে গত ২ ফেব্রুয়ারি আপিল বোর্ড গঠন করে সমাজ সেবা অধিদপ্তর। ওই আপিল বোর্ড গত ৫ ফেব্রুয়ারি জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিল করে নিপুণকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাধারণ সম্পাদক হিসেবে বিজয়ী ঘোষণা করেন। এরপর ইলিয়াস কাঞ্চন ও নিপুণ শপথ নেওয়ার মাধ্যমে সমিতির দায়িত্বে বসেন। এ অবস্থায় হাইকোর্টে রিট করেন জায়েদ খান। ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৭ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট নিপুণকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণার সিদ্ধান্ত স্থগিত করে আদেশ দেন ও রুল জারি করেন। হাইকোর্টের আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করেন নিপুণ। গত ৯ ফেব্রুয়ারি চেম্বার বিচারপতির আদালত হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করে দেন। আদালতের এ আদেশের পর সাধারণ সম্পাদকের চেয়ারে বসেন নিপুণ। এরপরই তার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ ওঠে। পরবর্তীসময়ে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ গত ১৪ ফেব্রুয়ারি চেম্বার জজ আদালতের আদেশ বহাল রেখে আদেশ দেন। একইসঙ্গে হাইকোর্টে রুল নিষ্পত্তির নির্দেশ দেওয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২ মার্চ হাইকোর্ট এক রায়ে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে অভিনেতা জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করেন। এ রায়ের পর ওই রাতেই সাধারণ সম্পাদকের চেয়ারে বসেন জায়েদ খান। এরপর নিপুণ আক্তারের করা আবেদনে আপিল বিভাগের চেম্বারজজ আদালতের বিচারপতি গত ৬ মার্চ হাইকোর্টের রায় চার সপ্তাহের জন্য স্থগিত করে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার আদেশ দেন। এছাড়া নিপুণের আবেদনের ওপর ৪ এপ্রিল আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির দিন ধার্য করেন। ওই আদেশের পর ওইদিনই সাধারণ সম্পাদকের চেয়ারে বসেন নিপুণ। এ কারণে তার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা করেন জায়েদ খান, যা আপিল বিভাগে বিচারাধীন। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি সুপ্রিম কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ মামলা করা হয় বলে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেন জায়েদ খানের আইনজীবী আহসানুল করিম।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category