• বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:০৪ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
স্বাস্থ্যসেবায় অভূতপূর্ব অর্জন বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে: রাষ্ট্রপতি শান্তি আলোচনায় কেএনএফকে বিশ্বাস করেছিলাম, তারা ষড়যন্ত্র করেছে: সেনাপ্রধান বন কর্মকর্তার খুনিদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতে কাজ করছে মন্ত্রণালয়: পরিবেশমন্ত্রী পুরান ঢাকার রাসায়নিক গুদাম: ১৪ বছর ধরে সরানোর অপেক্ষা ভাসানটেক বস্তিতে ফায়ার হাইড্রেন্ট স্থাপন করা হবে : মেয়র আতিক রুমা উপজেলা সোনালী ব্যাংকের অপহৃত ম্যানেজার উদ্ধারের পর পরিবার কাছে হস্তান্তর সন্ত্রাসী দল কর্মকান্ড পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বান্দরবানে চলছে জমজমাট নাইট মিনিবার স্বাধীনতা কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট-২৪ সরকারের বাস্তবমুখী পদক্ষেপে শিশু ও মাতৃমৃত্যুর হার কমেছে: প্রধানমন্ত্রী বান্দরবানে সোনালী ব্যাংকে লুটের ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে

ঝিমিয়ে রয়েছে দেশে জ্বালানি তেলের শোধন সক্ষমতা বাড়ানোর উদ্যোগ

Reporter Name / ৬৯ Time View
Update : শনিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
দেশে ক্রমাগত জ্বালানি তেলের চাহিদা বাড়লেও শোধন সক্ষমতা বাড়ানোতে এখনো পিছিয়ে রয়েছে দেশ। চাহিদা বাড়তে থাকলেও বাড়েনি শোধনক্ষমতা। বর্তমানে দেশে জ্বালানি তেলের বার্ষিক চাহিদা প্রায় ৬৫ লাখ মেট্রিক টন হলেও প্রতিবছরই চাহিদা বাড়ছে। কিন্তু রাষ্ট্রায়ত্ত একমাত্র প্রতিষ্ঠান ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেডের (ইআরএল) পরিশোধনের ক্ষমতা মাত্র ১৫ লাখ টন। এমন অবস্থায় সরকার ইস্টার্ন রিফাইনারির দ্বিতীয় ইউনিট করার গ্রকল্প হাতে নিলেও দীর্ঘসূত্রতায় একযুগেও শুরু করা যায়নি প্রকল্প গ্রহণের কাজ। জ¦ালানি বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, জ্বালানি তেলের শোধন সক্ষমতা বাড়াতে বিগত ২০১০ সালে ইস্টার্ন রিফাইনারি ইউনিট-২ প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে বার্ষিক উৎপাদন ক্ষমতা হবে ৩০ লাখ মেট্রিক টন। ফলে আগের ইউনিটের সঙ্গে যুক্ত হয়ে প্রতিষ্ঠানটির মোট শোধন ক্ষমতা ৪৫ লাখ মেট্রিক টনে উন্নীত হবে। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হলেও বাস্তবায়নে বেশ ধীরগতি। ফলে প্রকল্প বাস্তবায়নের সম্ভাব্য ব্যয়ও বাড়ছে। প্রথমে প্রকল্প ব্যয় ১৩ হাজার কোটি টাকা ধরা হয়েছিল। এখন তা ১৯ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। দেশের চাহিদা বিবেচনায় যতো দ্রুত সম্ভব প্রকল্পটি বাস্তবায়ন প্রয়োজন। দেশের জ¦ালানি নিরাপত্তার ক্ষেত্রে তা জরুরি। চলতি বছরের শুরুর দিকেই প্রকল্প সংক্রান্ত ডিপিপি (উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব) জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয় এবং প্রকল্পটি অনুমোদিত হয়েছে। তবে একনেকে চূড়ান্ত অনুমোদন হয়নি। তবে এখনো প্রকল্পটি পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে।
সূত্র আরো জানায়, ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেড চট্টগ্রামের পতেঙ্গায় ১৯৬৮ সালে উৎপাদন শুরু করে। প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক শোধনক্ষমতা ১৫ লাখ মেট্রিক টন। কিন্তু প্রায় দুই দশক আগেই অনেকটাই ফুরিয়ে গেছে ওই স্থাপনাটির আয়ুষ্কাল। পরিশোধন ক্ষমতা কমে ১২ লাখ টনেনেমে এসেছে। দীর্ঘ ৫৪ বছর ধরে স্থাপনাটি নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করে আসছে। পুরনো হওয়ার পাশাপাশি চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় এর সংস্কার এবং নতুন একটি ইউনিট স্থাপন জরুরি। কিন্তু দীর্ঘসূত্রতায় তা আটকে রয়েছে। তবে স্থাপনাটির আয়ুষ্কাল শেষ এবং পরিশোধনক্ষমতা কমে যাওয়ার পরও প্রয়োজনীয় রক্ষণাবেক্ষণের মাধ্যমে সক্ষমতা ধরে রাখা হয়েছে। কিন্তু দেশের জ¦ালানি চাহিদা এই একমাত্র রিফাইনারি দিয়ে মেটানো সম্ভব নয়। ফলে বেশি ব্যয়ে পরিশোধিত জ¦ালানি আমদানি করতে হচ্ছে।
এদিকে জ¦ালানি খাত সংশ্লিষ্টদের মতে, সাম্প্রতিক সময়ে ইউক্রেন-রাশিয়ার দ্বন্দ্বে অস্থিতিশীল অবস্থায় জ¦ালানি তেলের বিশ্ববাজার। হু হু করে দাম বেড়েছে। কিন্তু তার মধ্যেও প্রায় অর্ধেক দামে রাশিয়ার অপরিশোধিত তেলের সুযোগ ছিল। পরিশোধন ক্ষমতা থাকায় ভারত ও চীন ওই সুবিধা গ্রহণ করছে। কিন্তু বাংলাদেশে জ¦ালানি তেলের চাহিদা ক্রমাগত বেড়ে চললেও পরিশোধন ক্ষমতা বাড়ানো যায়নি। শোধন সক্ষমতা বাড়াতে ইন্টার্ন রিফাইনারির দ্বিতীয় ইউনিট নির্মাণের কাজ নানান জটিলতায় আলো দেখছে না।
এ প্রসঙ্গে ইস্টার্ন রিফাইনারি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুহাম্মদ লোকমান জানান, দ্বিতীয় ইউনিটের কাজ সম্পন্ন করা গেলে দেশের বার্ষিক জ¦ালানি তেল পরিশোধন ক্ষমতা ৩০ লাখ টন বেড়ে যাবে। ওই ইউনিটে ডিজেল, অকটেন, পেট্রোল, জেট ফুয়েল, সালফার, ফার্নেস অয়েল ও বিটুমিনসহ সকল ধরনের জ¦ালানি পরিশোধন করা যাবে। তন্মধ্যে বাংলাদেশে ডিজেলের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। সড়কের কাজে বিটুমিনেরও বিপুল চাহিদা। ইস্টার্ন রিফাইনারির উৎপাদিত বা পরিশোধিত জ¦ালানি তেল ও বিটুমিনের গুণগত মান খুবই উন্নত। সরকারী বেসরকারী সকল সেক্টরই জ¦ালানির জন্য এ প্রতিষ্ঠানের ওপর নির্ভর করে থাকে। তবেজ¦ালানি শোধনাগার নির্মাণ কাজ অনেক বড় একটি প্রকল্প। এ ধরনের কাজে অনেকগুলো দিক বিবেচনায় নিতে হয়। অনেক সতর্কতাও অবলম্বন করতে হয়। তাছাড়া দু’বছর ধরে করোনা পরিস্থিতির কারণে এক ধরনের প্রতিকূলতা ছিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category