• বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৪:১৩ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
এএসপি আনিস হত্যা মামলায় বাবার সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই: শেখ হাসিনা আগামী বাজেটে মূল্যস্ফীতি রোধে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হবে: অর্থ প্রতিমন্ত্রী অ্যামাজন-শেভরন-বোয়িং বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী অবৈধ সম্পদ অর্জন: স্ত্রীসহ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা জলবায়ুর ঝুঁকি মোকাবেলা আন্তর্জাতিক সহায়তার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বেনজীর-আজিজকে সরকার প্রটেকশন দেবে না: সালমান এফ রহমান ভিকারুননিসায় যমজ বোনকে ভর্তির নির্দেশ হাইকোর্টের এবারও ধরাছোঁয়ার বাইরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটি পটুয়াখালীর দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

ঢাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশা চলবে না: কাদের

Reporter Name / ১২ Time View
Update : বুধবার, ১৫ মে, ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ব্যাটারিচালিত কোনো রিকশা ঢাকা শহরে চলতে পারবে না বলে জনিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ব্যাটারিচালিত কোনো গাড়ি (তিন চাকার) যেন ঢাকা সিটিতে না চলে; আমরা ২২টি মহাসড়কে নিষিদ্ধ করেছি; শুধু নিষেধাজ্ঞা নয়, চালাতে যেন না পারে সে ব্যবস্থা নিতে হবে। আজ বুধবার রাজধানীর বনানীতে বিআরটিএর কার্যালয় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ আইন, ২০১৭-এর অধীনে গঠিত উপদেষ্টা পরিষদের প্রথম সভায় সভাপতির বক্তব্যে কাদের এ কথা বলেন। সভায় ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের মেয়র নগরের মধ্যে অটোরিকশা চলাচল বন্ধে সম্মতি দেন। ঢাকা শহরে যে ধরনের লক্কড়-ঝক্কড় ও রংচটা গাড়ি চলে তা পৃথিবীর অন্য কোনো দেশে দেখা যায় না বলে মন্তব্য করে তিনি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শহরে আধুনিক গণপরিবহন চলাচল করে। কিন্তু ঢাকায় লক্কড়-ঝক্কড় ও রংচটা গাড়ি চলে। এগুলো দেখতেও তো খারাপ লাগে। এর চেয়ে ঢাকার বাইরে মফস্বল এলাকাগুলোতে উন্নতমানের গণপরিবহন চলে। বিআরটিএ’র উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, এই লক্কড়-ঝক্কড় বাসগুলোর বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। যদিও এখন ডাম্পিং করতে গেলে দেখা যায় ওই ধরনের গাড়ি আর রাস্তা বের হবে না। তখন জনদুর্ভোগ সৃষ্টি হয় বলে অভিযোগ ওঠে। তিনি বলেন, সড়কে শৃঙ্খলা আনতে বিআরটিএ অনেক কর্মসূচি ও আইন করে। কিন্তু রেজাল্ট কী সড়কের দুর্ঘটনা এবং যানজট তো কমছে না। বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনা বন্ধ হবে না জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা পৃথিবীর কোনো দেশেই বন্ধ হবে না। তবে দুর্ঘটনা ও যানজট নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। যানজট এবং দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে কিছু যদি আমরা করতে না পারি তাহলে আমাদের নিরাপদ সড়কের স্বপ্ন দেখতে কী লাভ। প্রতিনিয়তই আমাদের কথা শুনতে হচ্ছে। ঈদের আগের চেয়ে ঈদের পরে সড়ক দুর্ঘটনা বেশি এবং মর্মান্তিক কিছু দুর্ঘটনা ঘটে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা মানুষ হিসেবে আমাকে কষ্ট দেয়। একটা মন্ত্রণালয়ে এতদিন দায়িত্ব পালন করার পরও সড়ক দুর্ঘটনা কমছে না। অথচ নিয়ম তো এমন হওয়া উচিত ছিল, এই বছরের ঈদে যে যানজট এবং দুর্ঘটনা ঘটবে, আগামী বছর তা আরও কমবে। কিন্তু সেখানে দুর্ঘটনা বাড়ছে। তাহলে আমরা কী কাজ করছি আমাদের টিম ওয়ার্কের কী সফলতা আছে এমন প্রশ্ন রাখেন ওবায়দুল কাদের। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ঢাকার মতো মফস্বল এলাকাগুলোতে পাম্পে তেল দেওয়ার ক্ষেত্রে মোটরসাইকেল চালকের হেলমেট বাধ্যতামূলক করতে হবে। বিআরটিএ জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেবে যাতে প্রতিটি পাম্প হেলমেট বাধ্যতামূলক করে। ‘নো হেলমেট নো ফুয়েল’ এই নীতিতে আমরা যাবো। এটি আজকের (গতকাল বুধবার) মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত। ওবায়দুল কাদের বলেন, উচ্চ হর্ন বর্তমানে একটি সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। যেগুলো হাসপাতাল, স্কুল- কলেজের সামনে বেশি করে বাজানো হয়। আমি নিজেও এখন থেকে ১০ বছর আগে আমার প্রোটেকশন গাড়ির হুটার বন্ধ করে দিয়েছে। ঢাকায়ও বাজানো হয় না, ঢাকার বাইরেও না। তিনি বলেন, জরুরিসেবার যানবাহন ছাড়া সরকারি ও বেসরকারি গাড়িতে এই হুটার বাজানো বন্ধের সিদ্ধান্তটা আমরা নিতে পারি। জরুরিসেবা যান (অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস) ছাড়া সরকারি-বেসরকারি সব গাড়িতে হুটার বাজানো একেবারে নিষিদ্ধ। সভা থেকে সিটির ভেতর ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা বন্ধ, হেলমেট ব্যবহার নিশ্চিত করাসহ ফিটনেস ও মেয়াদোত্তীর্ণ গাড়ি স্ক্র্যাপ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সড়কমন্ত্রী বলেন, সভায় বেশি সিদ্ধান্ত নিয়ে যদি তা বাস্তবায়ন করা না যায়, তাহলে সেই উদ্যোগ ফলপ্রসূ হয় না। এছাড়া এই মুহূর্তে আর্থিকভাবে অসুবিধায় ফেলবে এমন কোনো প্রকল্প এখন আমাদের নেওয়া উচিত নয়। দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ভয়াবহ ব্যাপার যে রিকশাচালকরা দুই পা ওপরে উঠিয়ে বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালান। অনেক প্রতিবন্ধী আছেন, যারা চোখে কিছুটা কম দেখেন তারাও এই রিকশা নিয়ে নেমে পড়েন। উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, সিদ্ধান্তে আসা দরকার যে ঢাকায় ইজি বা অটোরিকশা চলবে না। এটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। সভায় বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাজাহান খান, সড়ক ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নূরী, বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category