• রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:১৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
সিন্ডিকেটদের মদদ দিচ্ছে বিএনপি: কাদের পরজীবি দল হিসেবে জাপার প্রয়োজন আছে, গৃহপালিত নয়: জিএম কাদের দেশে কিশোর-তরুণদের প্রাণঘাতী যানে পরিণত হয়েছে মোটরবাইক চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগের শীর্ষ পদ পেতে আগ্রহী ১৪০০ জন ভারতীয় বন বিভাগের সহায়তায় নিজ দেশে ফিরল দুই হাতি বান্দরবানে সড়ক নির্মাণে বালির পরিবর্তে পাহাড়ের মাটি ব্যবহার স্পেনের বিনিয়োগকারীদের বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের আহ্বান রাষ্ট্রপতির অ্যাপভিত্তিক রাইড শেয়ারিংয়ে অনীহা বেশিরভাগ মোটরসাইকেল চালকেরই কোটি টাকার অস্ত্রোপচার বাংলাদেশে করা হয়েছে বিনামূল্যে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী শিশু আয়ানের মৃত্যুর ঘটনা তদন্তে নতুন কমিটি গঠন হাইকোর্টের

ঢাকা জেলা বিএনপির কাউন্সিল শুরু

Reporter Name / ১৬৫ Time View
Update : রবিবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
আনন্দ-উচ্ছ্বাসের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে ঢাকা জেলা বিএনপির দ্বি বার্ষিক কাউন্সিল। আজ রোববার দুপুর ২টা থেকে এ কাউন্সিল শুরুর কথা থাকলেও সকাল থেকে বিভিন্ন থানা ও উপজেলা থেকে কাউন্সিলর ও নেতাকর্মীরা সেখানে উপস্থিত আছেন। জেলার নবাবগঞ্জ উপজেলার কলাপোপা মাঠে আয়োজিত এই কাউন্সিলকে ঘিরে জেলা বিএনপির পদ প্রত্যাশীরাও দৌড়-ঝাপ করছেন। তবে এ কাউন্সিলে জেলা বিএনপির সাবেক ও বর্তমান কমিটি এবং অঙ্গ সংগঠনের অনেককে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বলেও অভিযোগ রয়েছে। আজকের (গতকাল) কাউন্সিলে নতুন নেতৃত্বের নাম ঘোষণা করা হচ্ছে না। কেন না নেতৃত্ব নির্বাচনের দায়িত্ব জেলার এক হাজার ১০ জন কাউন্সিলর লিখিতভাবে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের উপর ন্যস্ত করেছেন। তিনি সবার সঙ্গে কথা বলে এবং তৃণমূল পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদে নেতৃত্ব আনবেন বলে জানা গেছে। সাভারের সাবেক সংসদ সদস্য দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন বাবুকে সভাপতি ও খন্দকার আবু আশফাককে সাধারণ সম্পাদক করে ২০১৬ সালের ২৯ আগস্ট ৪৯ সদস্যের জেলা বিএনপির আংশিক কমিটি গঠন করা হয়। মেয়াদ শেষের এক বছর পর ২০১৯ সালের ২৪ মার্চ এ কমিটিকে ২৬৬ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ করা হয়। পরে কাউন্সিলের মাধ্যমে জেলার ১০টি সাংগঠনিক ইউনিট কমিটি গঠন করেন নেতারা। এসব কমিটি গঠনে নানা অভিযোগ থাকলেও দীর্ঘদিন পর নতুন কমিটি গঠনের আয়োজন করায় সন্তুষ্ট তৃণমূল বিএনপি। এবার রাগ-অভিমান ভুলে সব পক্ষ কাউন্সিলের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে বলে জেলার নেতারা জানান। জেলা বিএনপির শীর্ষ পদ পেতে ইতোমধ্যে জোর লবিং করছেন বর্তমান সভাপতি ডা. দেওয়ান সালাউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবু আশফাক এবং সাধারণ সম্পাদক পদে তমিজ উদ্দিন, খোরশেদ আলম, নাজিম উদ্দিন (ভিপি নাজিম), ব্যারিস্টার ইরফান ইবনে আমান অমি, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন ফেরদৌস মুরাদ। এর বাইরে নেতাকর্মীদের মধ্যে আলোচনায় আছেন দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরী। এসব প্রার্থীরা দলের হাইকমান্ডের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছেন। এ ক্ষেত্রে রাজনৈতিক জীবনে তাদের ত্যাগ-শ্রম আর সাংগঠনিক তৎপরতার বিভিন্ন দিক তুলে ধরছেন। পদ প্রত্যাশী রেজাউল কবির পলের সমর্থক নেতাকর্মী ও কাউন্সিলররা জানান, ছাত্রদলের তৃণমূল থেকে উঠে এসেছেন রেজাউল কবির পল। ১৯৯০ সালে ইস্পাহানী ডিগ্রি কলেজ থেকে তার রাজনীতিতে হাতেখড়ি। তিনি ওই কলেজের ছাত্রদলের সভাপতি ছিলেন। পর্যায়ক্রমে তিনি কেরানীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি হন। পরে ঢাকা জেলা ছাত্রদলের সভাপতি, ঢাকা জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এবং বর্তমানে ঢাকা জেলা যুবদলের সভাপতি হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করছেন। রেজাউল কবির পল জানান, দল যখন যেখানে তাকে যে দায়িত্ব দিয়েছে তখন সেখানে সর্বোচ্চ নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করেছেন। সামনেও করবেন। ঢাকা জেলা বিএনপিকে আরও শক্তিশালী করতে তাকে যে দায়িত্বই দেওয়া হোক তিনি তা পালন করবেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সিদ্ধান্তের ওপর তিনি আস্থা রেখে রাজনীতি করেন। তাই তাদের যে কোনো সিদ্ধান্ত তিনি সবময়ই মেনে নেবেন। জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক খোরশেদ আলম জানান, তিনি ছাত্র রাজনীতি থেকে বিএনপির সঙ্গে সম্পৃক্ত। সেখান থেকে জেলা যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়কের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। সাভার পৌরসভায় নির্বাচিত কাউন্সিলর ছিলেন তিনি। দলের হাইকমান্ড তাকে যেখানে দায়িত্ব দেবেন সেখানে তিনি কাজ করতে প্রস্তুত রয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category