• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ০১:০০ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার
সর্বশেষ
ঈদযাত্রায় বাড়তি ভাড়া আদায় করলে ব্যবস্থা বেনজীরের অঢেল সম্পদে হতবাক হাইকোর্ট তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুয়েক সময় আমাদের ট্রলার-টহল বোটে মিয়ানমারের গুলি লেগেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম-নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান রাষ্ট্রপতির সহকর্মীকে হত্যাকারী কনস্টেবল মানসিক ভারসাম্যহীন দাবি পরিবারের বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী চেকিংয়ের জন্য গাড়ি থামানো চাঁদাবাজির অংশ নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সারা দেশে ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা কতজন জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট বান্দরবান থেকে কেএনএফের ৩১ জনকে পাঠানো হলো চট্টগ্রাম কারাগারে

বিদেশ থেকে স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার নিয়ম

Reporter Name / ১৫০ Time View
Update : মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর, ২০২২

এ্যাডভোকেট আব্দুল মুকিত
প্রথমেই অত্যান্ত দুঃখের সাথে জানাচ্ছি যে, বর্তমানে প্রবাস থেকে তালাক দেওয়ার কোন উপায় নাই বললেই চলে। কয়েক বছর পূর্বে যদিও প্রবাস থেকে অনেকে তালাক দিতে পারতো কিন্তু বিভিন্ন আইনি সমস্যা দেখা যাওয়া বর্তমানে প্রবাস থেকে তালাক দেওয়া বন্ধ আছে। প্রবাস থেকে হয়ত আপনি আপনার স্ত্রীকে তালাকের ঘোষণা দিতে পারবেন, কিন্তু তালাকনামা নেওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই বাংলাদেশে থাকা কাজীর ভলিউমে স্বাক্ষর দিতে হবে । মোট কথা, প্রবাসে থাকা অবস্থাই আপনি তালাকের পুরো পক্রিয়া সম্পাদন করতে পারবেন না । তালাকের প্রক্রিয়া গুলো আইনসম্মত উপায়ে করতে হলে আপনাকে অবশ্যই ১ দিনের জন্য হলেও দেশে থাকতে হবে। এখানে একটি কথা বলে রাখি, তালাক দাতা কে হয় তালাদ প্রাদনের দিন অথবা তালাক ঘোষণা দেওয়ার ৯০ দিন পরে যখন তালাকের মেয়াদ পূর্ণ হবে, তখন তালাকনামা কাজীর থেকে উত্তোলনের জন্য তাকে অবশ্যই বাংলাদেশে থাকতে হবে। তবে সব থেকে উত্তম হয়, তালাক ঘোষণা দেওয়ার সময় তালাক দাতার বাংলাদেশে থাকা। তো চলুন এখন আমি আপনাদের দেখাচ্ছি কিভাবে আইন সম্মত উপায়ে একজন প্রবাসী তার স্ত্রীকে তালাক দিতে পারবে। এই জন্য মতিনকে (ছদ্মনাম) অন্তত ১ দিনের জন্য হলেও বাংলাদেশে আসতে হবে। বাংলাদেশে এসে মতিনকে কাজী অথবা একজন আইনজীবীর কাছে যেতে হবে। সেখানে গিয়ে মতিনকে তার স্ত্রীকে তালাক প্রাদানের ঘোষণা দিতে হবে এবং যাবতীয় কার্যক্রম গুলো সম্পাদন করতে হবে। একই সাথে উক্ত তালাকের ঘোষণার ৭ ধারা নোটিশ তার স্ত্রীর বর্তমান ঠিকানায় এবং স্ত্রী যে এলাকাতে স্থায়ীভাবে থাকে উক্ত এলাকার ইউনিয়ন পরিষদ অফিসে পৃথক দুটি নোটিশ পাঠাতে হবে অর্থাৎ এখানে সব থেকে গুরুত্বপূর্ন যে কথাটি আপনাদের জন্য বলবো তা হল, ল তালাকের ঘোষণা দেওয়ার দিন আপনারা অবশ্যই কাজীর কাছে থাকা তালাকের ভলিউমে আপনার স্বাক্ষর এবং টিপসই দিয়ে দিবেন। এতে করে ৯০ দিন পরে যখন তালাক সম্পর্ন হবে তখন তালাক নামা কাজী আপনার মনোনিত প্রতিনিধিকে কোন প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই দিতে পারবেন। অর্থাৎ এখানে আরেকটি কাজ করবেন তা হল তালাকের ৭ ধারা নোটিশের সাথে আপনি যদি ৫০০ টাকার ষ্ট্যাম্পে হলফনামা করেন তবে উক্ত হলফনামায় এটা উল্লেখ করবেন যে পরিষদ থেকে যখন উক্ত তালাকের মধ্যস্থতার জন্য স্বামী এবং স্ত্রী উভয় পক্ষকে আমন্ত্রন জানাবে, তখন আপনার অবর্তমানে আপনার প্রতিনিধি হিসাবে কে উক্ত মধ্যস্ততায় উপস্থিত থাকবে? এছাড়া উক্ত ৭ ধারা নোটিশের সাথে আপনি যে বিদেশ থেকে বাংলাদেশে এসেছেন, তার প্রমান স্বরূপ পাসপোর্টের একটি ফটোকপিও দিয়ে দিতে পারেন। এখানে আরেকটি কথা বলে রাখি, একজন ব্যক্তি তালাক দেশের যেকোন স্থান থেকেই দিতে পারবেন। মনে করুন, আপনারা বিবাহ করেছেন রাজশাহীতে এবং আপনার স্ত্রী বর্তমানে থাকেও রাজশাহীতে। এক্ষেত্রে আপনি আপনার স্ত্রীকে তালাক ঢাকা থেকে দিতে পারবেন । তালাকের কাজ গুলো ১ দিনের মধ্যেই সম্পাদন করে আপনি চাইলে আবার বিদেশে চলে যেতে পারেন। যাই হোক, মতিনের তালাকের ৭ ধারা নোটিশটি পাঠানোর দিন থেকে ১০০ দিন পূর্ন হবার পরে মতিনের একজন প্রতিনিধির মাধ্যমে স্ত্রীর স্থায়ী ঠিকানার ইউনিয়ন পরিষদ অফিসে পাঠাতে হবে। সেখানে গিয়ে লিখিত আবেদন করে তালাকটি কার্যকর হয়েছে এই মর্মে একটি প্রত্যয়ন পত্র নিয়ে আসতে হবে। এবার উক্ত প্রত্যয়ন পত্রটি নিয়ে মতিনের প্রতিনিধিকে যেতে হবে যে কাজীর মাধ্যমে তালাকটি দেওয়া হয়েছে উক্ত কাজীর কাছে সেখানে গিয়ে কাজীর থেকে তালাক নামা নিয়ে আসতে হবে। এভাবে সম্পাদন হয় প্রবাসে থাকা একজন ব্যক্তির তালাকের পুরো প্রক্রিয়া।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category