• শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০১:১৯ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার
সর্বশেষ
সর্বোচ্চ আদালতকে পাশ কাটিয়ে সরকার কিছুই করবে না: আইনমন্ত্রী নাইজেরিয়ান চক্রের মাধ্যমে চট্টগ্রামে কোকেন পাচার কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের অপেক্ষা করতে বললেন ব্যারিস্টার সুমন পদ্মা সেতুর সুরক্ষায় নদী শাসনে ব্যয় বাড়ছে পিএসসির উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীরসহ ৬ জনের রিমান্ড শুনানি পিছিয়েছে শৃঙ্খলা ভঙ্গের চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: ডিএমপি কমিশনার রপ্তানিতে বাংলাদেশ ব্যবহার করছে না রেল ট্রানজিট রাজাকারের পক্ষে স্লোগান সরকারবিরোধী নয়, রাষ্ট্রবিরোধী: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়নি বঙ্গোপসাগরের জীববৈচিত্র্য নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র-আলোকচিত্র প্রদর্শনী

বিশ্বজিৎ হত্যা: যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্ত পলাতক কামরুল গ্রেফতার

Reporter Name / ৮২ Time View
Update : সোমবার, ১৮ জুলাই, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
আলোচিত বিশ্বজিৎ হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি মো. কামরুল হাসানকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৩। বিশ্বজিৎ হত্যাকা-ের পর কামরুল পার্শ্ববর্তী দেশে তার নানার বাড়ির আত্মীয়ের আশ্রয়ে আত্মগোপন করেন। মামলার অভিযোগপত্র দাখিলের দুই মাস পর তিনি দেশে ফিরে আসেন। এরপর ২০১৪ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস করে ৫০ লক্ষাধিক টাকা উপার্জন করেন কামরুল। আজ সোমবার বিকেলে র‌্যাব-৩ এর স্টাফ অফিসার (অপস্ ও ইন্ট শাখা) পুলিশ সুপার বীণা রানী দাস এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, ২০১২ সালের ৯ ডিসেম্বর সকাল ৯টা থেকে সাড়ে ৯টার মধ্যে বাহাদুর শাহ পার্কের কাছে বিবদমান দুটি পক্ষের মাঝে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলছিল। এ সময় ধাওয়া খেয়ে পথচারী বিশ্বজিৎ দৌড়ে প্রথমে নিকটস্থ ভবনের দোতলায় অবস্থিত একটি ডেন্টাল ক্লিনিকে আশ্রয় নেন। দুষ্কৃতকারীরা ওই ক্লিনিকে বিশ্বজিতের ওপর হামলা চালিয়ে নির্বিচারে কিল-ঘুষি-লাথি মারতে থাকেন। তার গায়ে লৌহদ- দিয়ে সজোরে আঘাত করেন। আহত বিশ্বজিৎ প্রাণ বাঁচাতে পাশের আরেকটি ভবনে ঢুকে পড়েন। দুষ্কৃতকারীরা সেখানেও বিশ্বজিতের ওপর হামলা চালান। ১৫-২০ জনের একটি মৃত্যুকামী দল তাকে লৌহদ- এবং চাপাতি দিয়ে আঘাত করতে থাকেন। আঘাতে তার কাপড় ছিঁড়ে যায় ও পুরো শরীরে রক্তের বন্যা বয়ে যায়। তিনি আবারও পালানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু আঘাত অব্যাহত থাকে। একপর্যায়ে বিশ্বজিৎ মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। প্রাণ বাঁচানোর শেষ চেষ্টায় তিনি উঠে দৌড় দেন, কিন্তু শাঁখারীবাজারের একটি গলিতে গিয়ে ঢলে পড়ে যান। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় এক রিকশাচালক তাকে নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসক বিশ্বজিৎকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত বিশ্বজিৎ শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ভোজেশ্বর গ্রামের দাসপাড়া মহল্লার বাসিন্দা অনন্ত দাসের ছেলে। তিনি ২০০৬ সালে রাজধানীর শাঁখারীবাজারে নিউ আমন্ত্রণ টেইলার্সে দর্জির কাজ শুরু করেন। বিশ্বজিৎ বিবদমান দুটি পক্ষের কোনোটির সঙ্গেই জড়িত ছিলেন না। তিনি জীবিকার তাগিদে ঘটনার সময় তার লক্ষ্মীবাজারের বাসা থেকে শাঁখারীবাজারে নিজের কর্মস্থলে যাচ্ছিলেন। এ চাঞ্চল্যকর ঘটনায় ২০১২ সালের ৯ ডিসেম্বর সূত্রাপুর থানায় মামলা হয়। ২০১৩ সালের ৫ মার্চ এ ঘটনায় আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়। মামলাটি পরে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তর করা হয়। এরপর ২০১৩ সালের ৮ ডিসেম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৪ এর বিচারক মামলার রায়ে ২১ আসামির মধ্যে আটজনকে মৃত্যুদ- ও ১৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদ- প্রদান করেন। নিম্ন আদালতের আদেশের বিরুদ্ধে আসামিরা আপিল করলে মৃত্যুদ- পাওয়া আট আসামির মধ্যে দুজনের মৃত্যুদ- বহাল, চারজনের মৃত্যুদ- পরিবর্তন করে যাবজ্জীবন এবং অন্য দুজনকে খালাস দিয়ে ২০১৭ সালের ৬ আগস্ট হাইকোর্ট রায় দেন। পরে যাবজ্জীবন কারাদ- পাওয়া ১৩ আসামির মধ্যে দুজন আপিল করলে খালাস পান। বীণা রানী দাস বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৩ জানতে পারে চাঞ্চল্যকর বিশ্বজিৎ হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি মো. কামরুল হাসান রাজধানীর শান্তিনগর এলাকায় আত্মগোপন করে আছেন। তাকে আইনের আওতায় আনার জন্য র‌্যাব-৩ গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ায়। এরই ধারাবাহিকতায় রোববার রাতে রাজধানীর পল্টনের চামেলীবাগ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার আসামি জানান, ঘটনার দিন বিশ্বজিৎকে প্রতিপক্ষ দলের সদস্য ভেবে তারা ধাওয়া করেন। এরপর মামলার এজাহারনামীয় আসামিরা তাকে এলোপাতাড়ি আঘাত করতে থাকেন। বিশ্বজিৎ আহত হয়ে মাটিতে পড়ে গেলে তারা ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন। পরে তিনি জানতে পারেন অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে বিশ্বজিতের মৃত্যু হয়েছে এবং এ ঘটনায় সূত্রাপুর থানায় মামলা হয়েছে। এরপর তিনি পার্শ্ববর্তী দেশে তার নানার বাড়ির আত্মীয়ের আশ্রয়ে আত্মগোপন করেন। মামলার অভিযোগপত্র দাখিলের দুই মাস পর তিনি দেশে ফিরে আসেন। এই পুলিশ কর্মকর্তা আরও বলেন, ১৯৯৪ সালে বাবার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কামরুলের পরিবার ঢাকায় বসবাস করতো। তার বাবার মৃত্যুর পর তারা গ্রামের বাড়ি চলে যায়। তারা তিন বোন ও এক ভাই। কামরুল সবার ছোট। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে একটি স্কুল থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এসএসসি এবং একটি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। ২০০৫ সালে তিনি ঢাকার একটি কলেজে হিসাব বিজ্ঞানে স্নাতকে ভর্তি হন। তিনি বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোরের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন। ২০১১ সালে কামরুল তার সহপাঠীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তার একটি ছেলেও রয়েছে। ২০১৩ সালের শেষ দিকে বাংলাদেশে ফিরে এসে রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকায় পরিবার নিয়ে বসবাস শুরু করেন। এ সময় তিনি জীবিকার সন্ধানে বিভিন্নজনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে থাকেন। প্রথমে তিনি ছদ্মনামে গার্মেন্টস ব্যবসা শুরু করেন। এরপর তার সঙ্গে প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্রের মূলহোতা খোকন ও সোহেলের সঙ্গে পরিচয় হয়। তারা তাকে প্রলুব্ধ করে যে, তিনি প্রশ্নফাঁসের মাধ্যমে ঘরে বসেই প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। ‘কামরুল ২০১৪ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন বিক্রি করে ৫০ লক্ষাধিক টাকা উপার্জন করেন। অবৈধ উপার্জন দিয়ে তিনি কক্সবাজার সদর এলাকায় হোটেল ব্যবসা চালু করেন। লকডাউনে লোকসানের কারণে তার হোটেল ব্যবসা বন্ধ করে দেন। বর্তমানে তার দৃশ্যমান কোনো পেশা নেই’- যোগ করেন বীণা রানী দাস। আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গ্রেফতার কামরুলকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category