• শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১২:৫৩ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার
সর্বশেষ
ঈদযাত্রায় বাড়তি ভাড়া আদায় করলে ব্যবস্থা বেনজীরের অঢেল সম্পদে হতবাক হাইকোর্ট তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুয়েক সময় আমাদের ট্রলার-টহল বোটে মিয়ানমারের গুলি লেগেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম-নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান রাষ্ট্রপতির সহকর্মীকে হত্যাকারী কনস্টেবল মানসিক ভারসাম্যহীন দাবি পরিবারের বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী চেকিংয়ের জন্য গাড়ি থামানো চাঁদাবাজির অংশ নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সারা দেশে ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা কতজন জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট বান্দরবান থেকে কেএনএফের ৩১ জনকে পাঠানো হলো চট্টগ্রাম কারাগারে

ভারতীয় পণ্য রেলপথে আমদানিতে লাভবান হচ্ছে ব্যবসায়ী ও সরকার

Reporter Name / ৩৮৩ Time View
Update : বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক :
প্রতিবেশী দেশ ভারত থেকে বেনাপোল দিয়ে রেলপথে পণ্য বাড়ায় ব্যবসায়ী ও সরকার লাভবান হচ্ছে। ফলে ব্যবসায়ীও রেলপথে পণ্য আমদানিতে বেশি আগ্রহী। বিগত ২০২০-২১ অর্থবছরে বেনাপোল রেলপথে ভারত থেকে ৫ লাখ ৪০ হাজার ৬৫৯ টন বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি হয়েছে। ওই সময় রেল ভাড়া বাবদ সরকারের রাজস্ব আদায় হয়েছে ৩১ কোটি ৪০ লাখ ৭৯ হাজার ৬৩০ টাকা। তার আগে ২০১৯-২০ অর্থবছরে রেলপথে ভারত থেকে ১ লাখ ৮৪ হাজার ৭৩ টনের মতো পণ্য আমদানি হয়েছিল। যা থেকে ৮ কোটি ৮৮ লাখ ২৬ হাজার টাকা সরকারের রাজস্ব আদায় হয়। আর চলতি অর্থবছরের আগস্টে বেনাপোল দিয়ে রেলের মাধ্যমে ভারত থেকে ২২ হাজার ৮৫৫ টন পণ্য আমদানি হয়েছে। এই সময় রেলের রাজস্ব আয় এসেছে ১ কোটি ৭৮ লাখ ২৫ হাজার ৫৯৯ টাকা। তার আগে জুলাইয়ে পণ্য আমদানি হয় ৩৯ হাজার ৪৯৯ টন। ওই মাসে রেলের রাজস্ব আয় আসে ২ কোটি ৪৫ লাখ ৭৭ হাজার ৬৯ টাকা। বেনাপোল বন্দর সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়দের সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, স্থলপথে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে বাংলাদেশী ব্যবসায়ীরা ভারতের বনগাঁ কালিতলা ট্রাক পার্কিং সিন্ডিকেটের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছিল। সেখানে নানা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে সিরিয়ালের নামে ট্রাকপ্রতি ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত আদায় করতো। করোনার শুরুতে ওই ধরনের প্রবণতা আরো বেড়ে যায়। ফলে আমদানি খরচ বেড়ে যাওয়ায় দেশীয় বাজারে তার নেতিবাচ প্রভাব পড়ে। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে গত বছরের ৪ জুন থেকে সরকার রেলে সব ধরনের পণ্যের আমদানি বাণিজ্যের অনুমতি দিয়েছে।
সূত্র জানায়, ভারত থেকে রেলপথে পণ্য আমদানিতে খরচ সাশ্রয় আর নিরাপদ হওয়ায় ব্যবসায়ীরা দিন দিন রেলপথে বাণিজ্যে ঝুঁকছে। আগে মাসে ৪-৫টি ওয়াগনে পণ্য আমদানি হলেও বর্তমানে প্রতিদিন কার্গো রেল, সাইডোর কার্গো রেল এবং প্যার্সেল ভ্যানের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের পণ্য আমদানি হচ্ছে। তাতে ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি সরকারও রাজস্ব আয়ে লাভবান হচ্ছে।
এদিকে রেলপথে পণ্য আমদানি প্রসঙ্গে রেলওয়ের বেনাপোল স্টেশন মাস্টার মো. শাহিদুজ্জামান জানান, বর্তমানে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে স্থলপথের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে রেলপথেও পণ্য আমদানি হচ্ছে। তবে বন্দরের রেল ইয়ার্ড না থাকায় পণ্য রাখতে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। ইতিমধ্যে বন্দরে দুটি রেল ইয়ার্ড নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। চলছে বেনাপোল থেকে পেট্রাপোল পর্যন্ত ব্রডগেজ লাইনের সম্প্রসারণের কাজ। ওসব কাজ শেষ হলে রেলপথে বাণিজ্য আরো বাড়বে। আগে রেলপথে পাথর ও জিপসাম-জাতীয় পণ্য আমদানি হলেও বর্তমানে গার্মেন্ট, কেমিক্যাল, খাদ্যদ্রব্যসহ সব ধরনের পণ্য আসছে।
অন্যদিকে বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন সভাপতি মফিজুর রহমান সজন জানান, বর্তমানে রেলপথে সব ধরনের পণ্য আমদানি সচল রয়েছে। তাতে গত বছরের তুলনায় এ বছর আমদানি বেড়েছে। পাশাপাশি রেল খাতে সরকারের ৪ গুণ বেশি রাজস্ব বেশি আদায় হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category