• শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:১৮ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
‘মুজিবনগর দিবস’ বাঙালির পরাধীনতার শৃঙ্খলমুক্তির ইতিহাসে অবিস্মরণীয় দিন: প্রধানমন্ত্রী শ্রম আইনের মামলায় ড. ইউনূসের জামিনের মেয়াদ বাড়ল জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় গুরুত্ব থাকবে জনস্বাস্থ্যেও: পরিবেশ মন্ত্রী অনিবন্ধিত অনলাইনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ: তথ্য প্রতিমন্ত্রী মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনায় বিকল্পভাবে পণ্য আমদানির চেষ্টা করছি: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী স্বাস্থ্যসেবায় অভূতপূর্ব অর্জন বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে: রাষ্ট্রপতি শান্তি আলোচনায় কেএনএফকে বিশ্বাস করেছিলাম, তারা ষড়যন্ত্র করেছে: সেনাপ্রধান বন কর্মকর্তার খুনিদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতে কাজ করছে মন্ত্রণালয়: পরিবেশমন্ত্রী পুরান ঢাকার রাসায়নিক গুদাম: ১৪ বছর ধরে সরানোর অপেক্ষা ভাসানটেক বস্তিতে ফায়ার হাইড্রেন্ট স্থাপন করা হবে : মেয়র আতিক

মোটরসাইকেল চুরির সঙ্গে জড়িত চক্রের ৫ সদস্য গ্রেফতার

Reporter Name / ১২৬ Time View
Update : বুধবার, ১৭ আগস্ট, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
রাজধানীর যাত্রাবাড়ীসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে নকল চাবি দিয়ে তালা খুলে মোটরসাইকেল চুরির সঙ্গে জড়িত একটি চক্রের ৫ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। সম্প্রতি ডিএমপির গেন্ডারিয়া থানার একটি মোটরসাইকেল চুরির মামলা তদন্ত করতে গিয়ে সিসিটিভি ফুটেজ ও বিভিন্ন প্রযুক্তির সহায়তায় তাদের গ্রেফতার করা হয়। আজ বুধবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ। অভিনব উপায়ে এগুলো চুরির পর কেরানীগঞ্জ, দোহার, মুন্সীগঞ্জসহ ঢাকার পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকায় নিয়ে অল্প দামে বিক্রি করা হতো বলে এই পুলিশ কর্মকর্তা জানান। তিনি জানান, দীর্ঘদিন ধরে মোটরসাইকেল চুরি করে আসছে চক্রের দুই সদস্য নূর মোহাম্মদ (২৬) ও রবিন (২৩)। তাদের যাত্রাবাড়ীর শনির আকড়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সজল (১৮), মনির (২২) ও আকাশ (২২) নামের তিন জনকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন মডেলের ১৩টি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়। হারুন অর রশীদ বলেন, ‘পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে দীর্ঘদিন ধরে মোটরসাইকেল চুরি করে আসছিল একটি চক্র। গত কয়েক বছরে এই চক্রের সদস্যরা অন্তত ৫০০ মোটরসাইকেল চুরি করেছেÑ এমন অভিযোগে তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় চক্রটিকে ধরতে অভিযান শুরু করে ডিবির ওয়ারি বিভাগ। চক্রটি ছিল খুবই ধূর্ত। সিসিটিভি ফুটেজ দেখে চক্রের মূল হোতা নূর মোহাম্মদ ও রবিনকে শনাক্ত করা হয়। পরে রাজধানীর শনির আখড়া থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সজল, মনির ও আকাশকে যাত্রাবাড়ীর ধলপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।’ চক্রের মূল হোতা নূর মোহাম্মদকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে মূলত জুরাইন এলাকা থেকে চুরি শুরু করলেও পরে ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় চোর চক্র গড়ে তোলে। চক্রের অন্যতম সহযোগী রবিনের মাধ্যমে জিক্সার মোটরসাইকেলের চাবি তৈরি করে সে। চাবি ব্যবহার করে তারা জিক্সার মোটরসাইকেল অনায়াসেই স্টার্ট করতে পারতো। তাদের তথ্যমতে চুরি করা থেকে বিক্রি করা পর্যন্ত বিভিন্ন সদস্য স্ব স্ব দায়িত্ব পালন করতো। তাদের মধ্যে অন্যতম সজল, মনির ও আকাশ বিশেষভাবে কাস্টমার সংগ্রহ করার দায়িত্ব নিতো এবং তাদের গাড়ি ক্রয়ে উদ্বুদ্ধ করতো। তিনি জানান, এ সংঘবদ্ধ চক্রটি চোরাই মোটরসাইকেলগুলো সাধারণ মানুষের কাছে ইন্ডিয়ান বর্ডার ক্রস গাড়ি বলে বিক্রি করে আসছিল। প্রতিটি চোরাই মোটরসাইকেল তারা ৪০ থেকে শুরু করে ৮০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি করতো। আসামিরা আরও জানায়, তারা ২০১৫ সাল থেকে মোটরসাইকেল চুরি করে আসছে এবং এ পর্যন্ত ৫০০টিরও বেশি মোটরসাইকেল চুরি করেছে। গোয়েন্দা পুলিশের হাতে গ্রেফতার নূর মোহাম্মদের বিরুদ্ধে চারটি মামলা রয়েছে। এ ছাড়া সহযোগী রবিনের বিরুদ্ধে তিনটি এবং অন্য তিন জনের বিরুদ্ধে একটি করে মামলার তথ্য পাওয়া গেছে। এদিকে মোটরসাইকেল পার্কিংয়ে সবাইকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানিয়ে গোয়েন্দা প্রধান বলেন, ‘ঢাকার যেকোনও স্থানে গাড়ি পার্কিং করার ক্ষেত্রে সাবধান হতে হবে। এ ছাড়া গাড়ি নিজেদের তত্ত্বাবধানে রাখতে হবে। কোনও ধরনের চুরির ঘটনা ঘটলে সঙ্গে সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থানায় সাধারণ ডায়েরি করে গোয়েন্দা পুলিশকে অবহিত করতে হবে। ডিবি তার অভিজ্ঞতা, তথ্য-প্রযুক্তিগত জ্ঞান ও কৌশল দিয়ে আপনার মূল্যবান সম্পদ উদ্ধার করে দিতে সর্বদা সচেষ্ট আছে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category