• রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ১০:৩৫ পূর্বাহ্ন
  • ই-পেপার
সর্বশেষ
সর্বোচ্চ আদালতকে পাশ কাটিয়ে সরকার কিছুই করবে না: আইনমন্ত্রী নাইজেরিয়ান চক্রের মাধ্যমে চট্টগ্রামে কোকেন পাচার কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের অপেক্ষা করতে বললেন ব্যারিস্টার সুমন পদ্মা সেতুর সুরক্ষায় নদী শাসনে ব্যয় বাড়ছে পিএসসির উপ-পরিচালক জাহাঙ্গীরসহ ৬ জনের রিমান্ড শুনানি পিছিয়েছে শৃঙ্খলা ভঙ্গের চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা: ডিএমপি কমিশনার রপ্তানিতে বাংলাদেশ ব্যবহার করছে না রেল ট্রানজিট রাজাকারের পক্ষে স্লোগান সরকারবিরোধী নয়, রাষ্ট্রবিরোধী: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়নি বঙ্গোপসাগরের জীববৈচিত্র্য নিয়ে প্রামাণ্যচিত্র-আলোকচিত্র প্রদর্শনী

রাজধানীতে মোবাইল চুরি-ছিনতাই চক্রের মূলহোতাসহ গ্রেপ্তার ৩১

Reporter Name / ২১৯ Time View
Update : মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
রাজধানীতে অভিযান চালিয়ে চুরি-ছিনতাই মোবাইল সিন্ডিকেট চক্রের মূলহোতাসহ ৩১ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। এ সময় তাদের কাছ থেকে ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইক্যুইপমেন্ট আইডেন্টিটি (আইএমইআই) নম্বর পরিবর্তন করার বিভিন্ন সরঞ্জামাদিসহ এক হাজারের বেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের দেশি-বিদেশি মোবাইলফোন, ট্যাব ও ল্যাপটপ জব্দ করা হয়েছে। র‌্যাব বলছে, এই ছিনতাই চক্র ছোঁ মেরে পথচারীদের কাছ থেকে মোবাইল ছিনতাই করে নিয়ে যেতো। এরপর রাজধানীর ভাসমান মার্কেটে সেগুলো বিক্রি করে দিতো। ভাসমান মার্কেটে বিক্রির আগে মোবাইলগুলোর আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে ফেলা হতো। যাতে করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী চুরি-ছিনতাই হওয়া মোবাইলগুলোর খোঁজ না পায়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করা মোবাইলগুলোর মূল ক্রেতা অপরাধীরা। অপরাধীরা এসব মোবাইল কিনে বিভিন্ন অপরাধ্মূলক কর্মকা-ে জড়িত হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত সোমবার সন্ধ্যার পর থেকে র‌্যাব-৩ এর ৭টি আভিযানিক দল রাজধানীর লালবাগ, সিদ্ধিরগঞ্জ, পল্টন, গুলিস্তান, বায়তুল মোকাররম, মতিঝিল, খিলগাঁও, হাতিরঝিল, ওয়ারিসহ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে চক্রের ৩১ সদস্যকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তাররা হলো- মো. আল মামুন (২৮), মো. রাকিব (২৭), মো. জাহাঙ্গীর (৬৬), মো. ইকবাল (৫০), মো. মোখলেছুর রহমান (৩৮), মো. বিল্লাল মিয়া (৪০), মো. বিল্লাল (২৭), মো. রাকিব (২৩), মো. মাইনু (২১), মো. জনি (২০), মো. স্বপন (৫০), মো. সালাউদ্দিন আহম্মেদ (৩৫), মো. মোশারফ (৪৫), মেহেদী হাসান রাজু (২৪), মো. জুয়েল (৪০), মো. জুম্মুন (২৮), মো. রকিবুল ইসলাম (৩১), মো. নজরুল (৩০), মো. পারভেজ (৩৮), মো. ইউসুফ বেপারী (৪২), মো. ইউসুফ দেওয়ান (৩৫), মো. রুবেল মোল্লা (৩১), মো. রুবেল দেওয়ান (৩০), মো. জাফর (৪৮), মো. নাছির উদ্দিন ওরফে পিন্টু (৩১), মো. আনছার ঢালী ওরফে ডালিম হোসেন (৫২), মো. হালিম সরদার (৫২), মো. শাহীন শেখ (৩১), মোহাম্মদ আলী (৫৫), মো. সবুজ (২৮) ও মো. আবুল হোসেন (৬১)। এসময় তাদের কাছ থেকে ৩০টি ট্যাব, ৭১৭টি স্মার্টফোন, ৭৯৩টি বাটন মোবাইল, ২৮টি ল্যাপটপ ও নগদ ৫৫ হাজার ৬৪৭ টাকা জব্দ করা হয়। আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক (সিও) লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ এসব তথ্য জানান। তিনি বলেন, অভিযানে গুলিস্তান এলাকার চোরাকারবারি চক্রের মূলহোতা রাকিবসহ তার চার সহযোগী, পল্টন এলাকার চোরাকারবারী চক্রের মূলহোতা বিল্লাল হোসেনসহ তার ছয় সহযোগী, রমনা এলাকার চোরাকারবারী চক্রের মূলহোতা পারভেজসহ তার ছয় সহযোগী, শাহবাগ এলাকার চোরাকারবারী চক্রের মূলহোতা নাছির উদ্দিন ওরফে পিন্টুসহ তার ছয় সহযোগী, মতিঝিল এলাকার চোরাকারবারী চক্রের মূলহোতা মো. ইউসুফ বেপারীসহ তার চার সহযোগীসহ মোট ৩১ জন অপরাধীকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা মূলত ছিনতাই ও চোরাইকৃত মোবাইল ফোন অল্পদামে কিনে আইএমইআই নম্বর পরিবর্তন করে সুযোগ বুঝে বেশি দামে বিক্রি করতো। তিনি বলেন, র‌্যাব-৩ এর আওতাধীন এলাকায় অন্তত ২০টির বেশি মুঠোফোন ছিনতাইকারী চক্র রয়েছে। চুরি এবং ছিনতাই হওয়া মোবাইলগুলোর আইএমইআই নম্বর পরিবর্তিত হয়ে বিভিন্ন সিন্ডিকেট চক্রের যোগসাজশে বিভিন্ন মার্কেটের সামনে গোপনে বিক্রি করতো তারা। লেফটেন্যান্ট কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে গত কয়েকদিন ধরে মোবাইল ছিনতাই, চোরাই মুঠোফোন কেনাবেচায় জড়িত সিন্ডিকেট, দেশে অবৈধভাবে আসা বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নামিদামি মোবাইল ফোনের জমজমাট বাণিজ্য, চোরাইকৃত মোবাইল ফোনের আইএমইআই পরিবর্তন করে নানা মাধ্যমে বিক্রির বিষয়টি দেশের শীর্ষ স্থানীয় পত্র-পত্রিকায় অন্যতম আলোচনার বিষয় ছিল। ফলশ্রুতিতে র‌্যাব-৩ এ ব্যাপারে বিভিন্ন পর্যায়ে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধি করতে থাকে। জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়ে এই অপারেশনে র‌্যাবকে সহযোগিতা করেছে। তিনি আরও বলেন, ছিনতাইকারীদের প্রধান টার্গেট থাকে পথচারীদের মোবাইল। এসব মোবাইল অল্পদামে চোরাই মোবাইল কারবারিদের কাছে বিক্রি করা হয়। এছাড়াও এসব মোবাইলের আইএমইআই পরিবর্তন করে স্বল্পআয়ের গ্রহকদের কাছে বিক্রি করা হয়। আইএমইআই পরিবর্তন করার কারণে এসব মোবাইল পরে উদ্ধার করা সম্ভব হয় না। বাংলাদেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী ডাকাতিকৃত, ছিনতাইকৃত ও চোরাইমাল বিক্রি ও কাছে রাখা আমলযোগ্য অপরাধ। দীর্ঘদিন ধরে তারা নির্বিঘেœ-নির্ভয়ে চোরাই মোবাইল বিক্রি ও আইএমইআই পরিবর্তনের অবৈধ ব্যবসা করছিল। এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক বলেন, আমরা ৩১ জনকে গ্রেপ্তার করেই বলছি না যে, আমরা রাজধানীর সব মোবাইল ছিনতাই চক্রকে গ্রেপ্তার করেছি। শুধুমাত্র র‌্যাব-৩ এলাকাভুক্ত অন্তত ২০টির বেশি মোবাইল ছিনতাইকারী চক্র রয়েছে। আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে। পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে কীভাবে মোবাইল এনে বিক্রি করতো চক্রটি- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে আসার সময় অনেকে তিন থেকে চারটি মোবাইল আনে। মোবাইলগুলো আনা হয় প্যাকেট ছাড়াই। এতে করে ভ্যাট-ট্যাক্স না পরিশোধ করা লাগে না। এরপর মোবাইলগুলো বেশি দামে এই চক্রের কাছে বিক্রিত করা হতো।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category