• শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৮:২১ অপরাহ্ন
সর্বশেষ

শান্তিরক্ষার দায়িত্বে সরকার সচেতন থাকবে: আইনমন্ত্রী

Reporter Name / ২০ Time View
Update : বুধবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক :
আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ একটি গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে পরিচিত। সে গণতান্ত্রিক দেশে ভিন্ন অনেক রকম মত থাকতে পারে, সেসব মতের লোকেরা কথা বলতে পারে।

আমার মনে হয় না আমাদের সে অধিকার দেওয়ার ব্যাপারে কোনো দ্বিমত আছে। কিন্তু শেখ হাসিনার সরকারের কাছে জনগণ যে দায়িত্ব দিয়েছে, সেটা জনগণের জানমাল রক্ষার দায়িত্ব এবং দেশের শান্তিরক্ষার দায়িত্ব। সে বিষয়ে আমরা সচেতন থাকব।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে আজ বুধবার বিকেলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় মহিলা ডিগ্রি কলেজের হলরুমে উপজেলা আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় যোগ দেওয়ার আগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন আনিসুল হক। নির্বাচন পেছানো প্রসঙ্গে আইনমন্ত্রী বলেন, সেটা নির্বাচন কমিশন (ইসি) বলতে পারবে। আমি বলতে পারব না। তিনি আরও বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকা কসবা-আখাউড়ার উন্নয়নে যা যা করা প্রয়োজন তা করা হবে।

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তফসিল ঘোষণার পর গতকাল বুধবার প্রথমবারের মতো নিজ নির্বাচনী এলাকায় যান আনিসুল হক। কসবা উপজেলায় এলে নেতাকর্মীরা আইনমন্ত্রীকে স্বাগত জানান। পরে তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় যোগ দেন। আইনমন্ত্রী তৃতীয়বারের মতো আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া) আসন থেকে নির্বাচন করবেন। নির্বাচনী বিধি যেন লঙ্ঘন না হয়, সেজন্য ঢাকা থেকে আখাউড়ায় না নেমে কুমিল্লায় চলে যান আইনমন্ত্রী। পরে সেখান থেকে তিনি সড়ক পথে কসবায় আসেন।।

পথে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখতে গিয়ে আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন মন্ত্রী। তবে নিয়ম মেনে ভোট না চেয়ে দোয়া প্রার্থনা করেন তিনি। কসবায় প্রবেশের পথে সড়কে নেতাকর্মীরা জড়ো হলো তাদের উদ্দেশে আইনমন্ত্রী বলেন, ভোট চাইতে পারবো না। ১৮ তারিখ পর্যন্ত প্রচারণা করতে দেবে না নির্বাচন কমিশন। এটা আইন। আমি আইন মেনে চলবো।

আপনারা যে দায়িত্ব দিয়েছিলেন সন্তান হিসেবে সেটা পালন করেছি। প্রথমদিন বলেছিলাম পাশে থাকবো। আমি ১০ বছর আর কিছু করি নাই পাশে থাকা ছাড়া। সুখে-দুঃখে পাশে ছিলাম আপনাদের। নির্বাচন আসন্ন। আপনারা ভোট দেবেন। এসময় আপ্লুত হয়ে তিনি বলেন, যারা আমার বয়সে বড় ছিলেন তাদের সন্তান হিসেবে কাজ করেছি। যারা বয়সে ছোট তাদের অভিভাবক হিসেবে কাজ করেছি। আমি ভুলত্রুটি করতে পারি। কিন্তু সন্তানকে যেভাবে মাফ করে দেন আমাকেও সেইভাবে মাফ করে দিয়েন। আর যদি কোনো উপকার করে থাকি দোয়া করবেন আমার জন্য।

আমি ফিরে আসবো। ১৮ তারিখ প্রচারণা শুরু হলে কথা বলবো। এসময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, নির্বাচনের পিছানো না পিছানোর বিষয়টি সম্পূর্ণ নির্বাচন কমিশনের বিষয়। এ বিষয়ে আমার কোনো মন্তব্য নেই। তবে এটা বলতে পারি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোনো ধরনের অরাজকতা সৃষ্টি করলে জবাব দেওয়া হবে।

এসময় কসবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রাশেদুল কাওসার ভূঁইয়া জীবন, কসবা পৌরসভার মেয়র এমজি হাক্কানীসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে বর্ধিত সভায় সভাপতি হিসেবে যোগ দেন আনিসুল হক।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category