• সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০৪:১৫ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার

সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো হবে: কাদের

Reporter Name / ৫২ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
রাজধানীতে যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং, রিকশা-সিএনজির জট ও বাসের নৈরাজ্য চলে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। পথচারী-যাত্রীদের অভিযোগ, ইচ্ছে করেই মাঝ রাস্তায় বাস থামিয়ে যাত্রী ওঠানো-নামানো হতো। এ ছাড়া মূল সড়কে রিকশার কারণে যানজট লেগে থাকে। দুর্ঘটনাও ঘটে কোনো নিয়ম না মানায়। নগরবাসীর কথা চিন্তা করে পরিবহন খাতে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে অঙ্গীকার করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। রাজধানীতে বাস রুট রেশনালাইজেশনের নতুন দুটি রুটের উদ্বোধন করে নিজের অঙ্গীকারের কথা জানান মন্ত্রী। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় নগর পরিবহনের নতুন রুট উদ্বোধন করে তিনি এ কথা বলেন। রাজধানীর বাস রুট রেশনালাইজেশনের আওতায় নতুন রুট দুটি হলো- ২২ ও ২৬ নম্বর। ঢাকা নগর পরিবহনের ২২ নম্বর রুট পরিচালিত হবে ঘাটারচর-ডেমরা স্টাফ কোয়ার্টার হয়ে; ঘাটারচর-কদমতলী মিলিয়ে হবে ২৬ নম্বর রুট। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ওবায়দুল কাদের বলেন, পরিবহনে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে আমি অনেকদিন ফাইট করছি। কোনো কিছুই সুফল দেবে না যদি রাস্তায় বিশৃঙ্খলা থাকে, জনজীবনে শৃঙ্খলা না থাকে। ঢাকা এখনও পৃথিবীর অন্যতম বসবাস অযোগ্য শহর। এ সময় নগরীর উন্নতি হচ্ছে দাবী করে তিনি বলেন, আগে বিশ্বের বাসযোগ্য শহরের তালিকায় ১৪০ শহরের মাঝে ১৩৯ তম ছিল ঢাকা। এখন উন্নতি হয়ে ঢাকা ১৩৩ তম অবস্থানে এসেছে। দুই মেয়র যেভাবে কাজ করে যাচ্ছেন ঢাকা হবে গ্রিন ও ক্লিন সিটি। আমরা বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নতুন আশা দেখছি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটির প্রধান ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। তিনি বলেন, যে দুটো রুট চালু করছি তার জন্য দুই বছর ধরে কাজ করছি। অনেক প্রতিকূলতা ছিল, প্রতিবন্ধকতা কাটিয়ে আমরা এ রুট উদ্বোধন করতে পেরেছি। বাসযোগ্য ঢাকা গড়তে হলে সুশৃঙ্খল গণ-পরিবহন চালু করতে হবে বলে এ সময় মন্তব্য করেন দক্ষিণের মেয়র। তিনি আরও বলেন, এবার নতুন ৫০টি বাস রাস্তায় নামছে। এখন থেকে পেছনে ফেরার সুযোগ নেই। আর কোনো পুরাতন বাস চলবে না। যাত্রী সেবার উৎকর্ষ বাড়াবে এসব নতুন বাস। মাঝপথে কোনো যাত্রী ওঠানো-নামানো হবে না। এমন আবদার করবেন না। সুশৃঙ্খলভাবে পরিচালিত হবে। কাউন্সিলরদের উদ্দেশ্যে মেয়র বলেন, যাত্রী ছাউনি সেবা শুধুমাত্র যাত্রীদের জন্যে। কেউ যেন দখল করতে না পারে। রুট পারমিট ও অনুমোদন বিহীন কোনো বাস চলবে না। উত্তর ও দক্ষিণ সিটি অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে বলেও জানান তাপস। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন মেয়র তাপস। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, স্থানীয় সংসদ সদস্য সাদেক খান, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী, ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক সাবিহা পারভিন।
রুট নম্বর ২২ আওতাধীন এলাকা: বাসরুট রেশনালাইজেশনের আওতায় ২২ নম্বর রুটের যাত্রী ছাউনি ও বাস চলাচল করবে ঘাটারচর, ওয়াসপুর, বসিলা, বসিলা সিএনজি স্ট্যান্ড, মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ড, টাউন হল, আসাদগেট, ফার্মগেট, কাওরান বাজার, বাংলামোটর, শাহবাগ, কাকরাইল, ফকিরাপুল, মতিঝিল, টিকাটুলি (টিকাটুলি থেকে কাজলা পর্যন্ত ফ্লাইওভারের ওপর দিয়ে বাস চলাচল করবে), কাজলা, কোনাপাড়া, স্টাফ কোয়ার্টার পর্যন্ত। এ রুটে বাস চলছে অভি মোটরসের। এ বাসের মালিক ও নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান অভি মটরসের সমন্বয়ক সিরাজুল ইসলাম জানান, প্রতিটি বাসে ৪২টি আসন থাকছে। ভেতরে যাত্রীদের ঢোকা ও বের হওয়ার জন্য পর্যাপ্ত জায়গা রাখা হয়েছে। প্রতিটি বাসে সিসিটিভি ক্যামেরা ও একটি করে টেলিভিশন থাকবে। পাশাপাশি চালকদের ড্রাইভিং লাইসেন্স ও প্রশিক্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।
রুট নম্বর ২৬ আওতাধীন এলাকা: বাসরুট রেশনালাইজেশনের আওতায় ২৬ নম্বর রুটের যাত্রীছাউনি ও বাস চলাচল করবে ঘাটারচর, ওয়াসপুর, বসিলা, বসিলা সিএনজি স্ট্যান্ড, মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ড, টাউনহল, আসাদ গেট, সোবহানবাগ, কলাবাগান, সায়েন্সল্যাব, নিউমার্কেট (নীলক্ষেত), আজিমপুর, পলাশী, চাঁনখারপুল (চাঁনখারপুল থেকে পোস্তগোলা পর্যন্ত ফ্লাইওভারের ওপর দিয়ে বাস চলাচল করবে), পোস্তগোলা ও পাগলা (কদমতলী থানা) পর্যন্ত।
নতুন যাত্রী ছাউনি: বাস রুট রেশনালাইজেশন কমিটি রুট নম্বর ২২ ও ২৬ এর জন্য আলাদা আলাদা বাস থামার স্থান নির্ধারণ করেছে। এ রুটে চলাচলকারী যাত্রীদের জন্য ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন যাত্রীদের জন্য ১১টি নতুন যাত্রী ছাউনি নির্মাণ করা হয়েছে। মেরামত করা হয়েছে তিনটি যাত্রী ছাউনি। ২২ নম্বর রুটের জন্য নতুন পাঁচটি যাত্রী ছাউনি তৈরি করা হয়েছে। মেরামত করা হয়েছে দুটি। ২৬ নম্বর রুটে নতুন ছয়টি ছাউনি নির্মাণ করা হয়েছে; মেরামত করা হয়েছে একটি। নতুন নির্মিত যাত্রী ছাউনিগুলো নিউ মার্কেট, ধানমন্ডি ও মৎস্য ভবনসহ বিভিন্ন পয়েন্টে নির্মাণ করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনকে আহ্বায়ক করে ২০১৮ সালের ৯ সেপ্টেম্বর দশ সদস্য বিশিষ্ট ‘ঢাকা মহানগরীতে যানজট নিরসনে বাস রুট রেশনালাইজেশন ও কোম্পানির মাধ্যমে বাস পরিচালনা পদ্ধতি প্রবর্তনের জন্য এ-সংক্রান্ত কার্যক্রম সমন্বয় কমিটি’ গঠন করা হয়। এ কমিটি ঢাকা শহরের ৯টি গুচ্ছের আওতায় বাস রুটকে ৪২ রুটে ভাগ করে। কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গত ২৬ ডিসেম্বর ২১ নম্বর রুটের ঘাটারচর-মোহাম্মদপুর-জিগাতলা- প্রেসক্লাব-মতিঝিল-যাত্রাবাড়ী-কাঁচপুর নমুনা যাত্রাপথে ঢাকা নগর পরিবহনের নামে বিআরটিসির ৩০টি দ্বিতল বাস চলাচল করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category