• মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৩:৩২ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
অগ্নিকা- প্রতিরোধে পদক্ষেপ পর্যালোচনায় বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন হাইকোর্টের রমজানে পণ্যের দাম ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার সুযোগ নেই: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী ১০ মার্চের মধ্যে ১৫ টাকা কেজি দরে চাল পাবে ৫০ লাখ পরিবার: খাদ্যমন্ত্রী বীজে অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে: কৃষিমন্ত্রী ধানম-ির টুইন পিক টাওয়ারের ১২ রেস্তোরাঁ সিলগালা বান্দরবানে সাংবাদিকদের ২ দিন ব্যাপী আলোকচিত্র ও ভিডিওগ্রাফি প্রশিক্ষণ মজুদদারির বিরুদ্ধে ডিসিদের কঠোর হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিকে অভিযানে ডিসিদের সহায়তা চাইলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সংসদে অনির্বাচিত কেউ আসতে পারে না : স্পিকার ইসলামি শিক্ষা কেন্দ্রে মাওলানা আব্দুলাহ আনোয়ার আটক

৩০ মার্চ থেকে সরকারি হাসপাতালেই ফি নিয়ে রোগী দেখবেন চিকিৎসকরা

Reporter Name / ১০৭ Time View
Update : সোমবার, ২৭ মার্চ, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক :
আগামী ৩০ মার্চ থেকে সরকারি হাসপাতালে প্রাতিষ্ঠানিক প্র্যাকটিস শুরু করবেন চিকিৎসকরা। প্রাথমিকভাবে ১০টি জেলা ও ২০টি উপজেলায় পাইলটিংভাবে এ চিকিৎসাসেবা দেওয়া হবে। বিকেল ৩টা থেকে ৬টা পর্যন্ত বৈকালিন এ চিকিৎসাসেবায় অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সিনিয়র কনসালটেন্টরাও রোগী দেখবেন। এজন্য ফি নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। আজ সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয় সভাকক্ষে ‘সরকারি চিকিৎসকদের বৈকালিক স্বাস্থ্যসেবা’ সংক্রান্ত সভা শেষে আয়োজিত এক ব্রিফিংয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, প্রথমে আমরা ১০টি জেলা ও ২০টি উপজেলায় এ প্রকল্প শুরু করতে যাচ্ছি। এ কার্যক্রমে কোনো ত্রুটি-বিচ্যুতি থাকলে সেটি দূর করে পর্যায়ক্রমে আমরা ৫০০টি উপজেলায় এ কার্যক্রম শুরু করতে যাবো। এ ছাড়া ৬৪টি জেলায় এ কার্যক্রম শুরু করবো আমরা। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিকেল ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সরকারি চিকিৎসকরা নিজ প্রতিষ্ঠানে চেম্বার প্র্যাকটিস করতে পারবেন। এখানে চিকিৎসক, নার্স ও টেকনিশিয়ানরা পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করবেন। প্রাথমিক পর্যায়ে চিকিৎসকরা সপ্তাহে দুই দিন করে চেম্বার ডিউটি করতে পারবেন। চেম্বার ডিউটিতে একজন অধ্যাপকের ফি হবে ৫০০ টাকা। এতে তিনি পাবেন ৪০০, চিকিৎসাসেবায় সহযোগিতাকারীকে ৫০ টাকা ও সার্ভিস চার্জ ৫০ টাকা ধরা হয়েছে। এভাবে সহযোগী অধ্যাপকের ফি ৪০০ হলেও তিনি পাবেন ৩০০ টাকা, সহকারী অধ্যাপকের ফি ৩০০ টাকা, তিনি পাবেন ২০০ এবং এমবিবিএস/বিডিএস ও সমমানের চিকিৎসকদের ফি হবে ২০০ টাকা এবং তিনি পাবেন ১৫০। এ ক্ষেত্রে চিকিৎসাসেবায় সহযোগিতাকারীর জন্য ২৫ টাকা এবং সার্ভিস চার্জ ২৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।’ বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, বৈকালিক চিকিৎসাসেবায় ছোট অস্ত্রোপচার ও পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। এক্সরে, আল্ট্রাসনোগ্রাফিসহ অন্য যে সেবাগুলো থাকে, সেগুলোও থাকবে। আর এসব সেবারও মূল্য নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। তার একটি অংশ পাবেন চিকিৎসক ও সহযোগিতাকারীরা, আরেকটি অংশ পাবে হাসপাতাল। স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, জেলা ও উপজেলার সরকারি হাসপাতালগুলোতে সকাল ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত সরকারি চিকিৎসকরা দায়িত্ব পালন করেন। তারপর সিনিয়র চিকিৎসকরা থাকেন না। যে কারণে বিকেলের দিকে চিকিৎসাসেবার প্রয়োজন হলে তখন তাদের পাওয়া যায় না। মানুষের এ কষ্ট লাঘব করতেই চিকিৎসকদের দ্বিতীয় শিফট সেবা চালু করতে যাচ্ছি। তিনি বলেন, আমরা স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নত করতে চেষ্টা করছি। আশা করছি, এখন থেকে বৈকালিক চিকিৎসাসেবাটাও মানুষ পাবে। জেলা-উপজেলার স্বাস্থ্যসেবার মান বেড়েছে। সরকারি চিকিৎসকদের চেম্বার প্র্যাকটিসের কারণে রোগীরা আরও ভালো সেবা পাবে। তিনি আরও বলেন, একজন বিশেষ চিকিৎসক বেসরকারি হাসপাতালে অস্ত্রোপচার কিংবা কনসালটেশনে যে টাকা নেন, চেম্বার প্রাকটিসে তার চেয়ে অনেক কম টাকা নেবেন। অনেক দেশেই সরকারি চিকিৎসকরা প্রাইভেট প্র্যাকটিস করেন না। আমরা সরকারি চিকিৎসকদের প্রাইভেট প্র্যাকটিসের অনুমোদন দেই। এখন তারা যাতে সেই প্র্যাকটিসটা সরকারি প্রতিষ্ঠানে করেন কমমূল্যে, আমরা সেই চেষ্টা করছি। এতে মানুষ ভালো চিকিৎসা সেবা পাবে। এটিতে সফল হতে পারলে আমরা আরও এগিয়ে যেতে পারবো। আমরা আরও ভালো করার চেষ্টা করবো। চেম্বার প্র্যাকটিসের কারণে সকালের সেবায় কোনো প্রভাব পড়বে কি না- জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, না, এ রকম কিছু আমরা দেখছি না। বিকেলের সেবার কারণে সকালের সেবায় কোনো প্রভাব পড়বে না। সরকারি হাসপাতালে প্রাতিষ্ঠানিক প্র্যাকটিস শুরু হলে মানুষ আরও ভালো সেবা পাবে। যে সেবাটা তারা দিনের বেলায় পেতেন, সেটি তারা সন্ধ্যা পর্যন্ত পাবেন। জরুরি সেবাও তারা হাসপাতাল থেকে পাবেন। সার্বিক স্বাস্থ্যসেবার একটি উন্নয়ন হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এ বিষয়ে আন্তরিক। এ সেবা তাড়াতাড়ি চালু করতে তিনি তাগিদ দিয়ে এসেছেন। যোগ করেন তিনি। মন্ত্রী বলেন, এ মেয়াদের শুরুতেই সরকারি চিকিৎসকদের প্রাতিষ্ঠানিক প্র্যাকটিস শুরু করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা ছিল। তাতে সাধারণ রোগীরা অনেক ভালো সেবা পাবেন। কিন্তু আমাদের গেল দু-তিন বছরে ডেঙ্গু ও করোনার কারণে আমরা এটি শুরু করতে পারিনি। এখন যেহেতু করোনা নিয়ন্ত্রণে আছে, এ বিষয়ে কাজ শুরু করে আমরা মোটামুটি শেষ পর্যায়ে চলে এসেছি। আমরা মার্চেই শুরু করবে বলে আপনাদের বলেছিলাম। পাইলট প্রকল্প হিসেবে হলেও আমরা শুরু করবো। এখন ৩০ মার্চ থেকে পাইলট প্রকল্প হিসেবে প্রাতিষ্ঠানিক প্র্যাকটিস শুরু করতে যাচ্ছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category