• মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৩:২১ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
অগ্নিকা- প্রতিরোধে পদক্ষেপ পর্যালোচনায় বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন হাইকোর্টের রমজানে পণ্যের দাম ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার সুযোগ নেই: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী ১০ মার্চের মধ্যে ১৫ টাকা কেজি দরে চাল পাবে ৫০ লাখ পরিবার: খাদ্যমন্ত্রী বীজে অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে: কৃষিমন্ত্রী ধানম-ির টুইন পিক টাওয়ারের ১২ রেস্তোরাঁ সিলগালা বান্দরবানে সাংবাদিকদের ২ দিন ব্যাপী আলোকচিত্র ও ভিডিওগ্রাফি প্রশিক্ষণ মজুদদারির বিরুদ্ধে ডিসিদের কঠোর হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিকে অভিযানে ডিসিদের সহায়তা চাইলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সংসদে অনির্বাচিত কেউ আসতে পারে না : স্পিকার ইসলামি শিক্ষা কেন্দ্রে মাওলানা আব্দুলাহ আনোয়ার আটক

অবৈধ ইটভাটা ভাঙার বিরুদ্ধে বক্তব্য দিতে পারবেন না মালিকরা

Reporter Name / ১১১ Time View
Update : বুধবার, ৯ মার্চ, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
অঙ্গীকারনামা দিয়ে মামলায় পক্ষভুক্ত হলো ইটভাটা মালিক সমিতি। অবৈধ ইটভাটা ভেঙে ফেলার আদেশের বিরুদ্ধে বক্তব্য না দেওয়ার শর্তে আন্ডারটেকেন (অঙ্গীকারনামা) দাখিলের মাধ্যমে এ-সংক্রান্ত মামলায় পক্ষভুক্ত হয়েছে সমিতিটি। রিট মামলায় অন্তর্ভুক্তি চেয়ে সমিতির আবেদনের শুনানি নিয়ে আজ বুধবার বিচারপতি মো. আশফাকুল ইসলাম ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে সমিতির আবেদনের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন ব্যারিস্টার অনিক আর হক। অন্যদিকে রিটকারির পক্ষে শুনানিতে ছিলেন সিনিয়র অ্যাভোকেট মনজিল মোরসেদ। গত ১ মার্চ রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের ৫ জেলার সব অবৈধ ইটভাটা বন্ধে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকদের ১৫ দিন সময় বেঁধে দেন হাইকোর্ট। বাকি চারটি জেলা হলোÑ গাজীপুর, মুন্সীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ ও মানিকগঞ্জ। আদালতে পরিবেশ অধিদফতরের পক্ষে অ্যাডভোকেট আমাতুল করিম, উত্তর সিটি করপোরেশনের পক্ষে অ্যাভোকেট মো. শাহজাহান ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষে সিনিয়র অ্যাভোকেট সাইদ আহেমেদ এবং ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালকের পক্ষে অ্যাভোকেট মো. মনিরুজ্জামান শুনানিতে ছিলেন। এর আগে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকাসহ পার্শ্ববর্তী পাঁচ জেলার ৩১৯টি অবৈধ ইটভাটার তথ্য হাইকোর্টকে জানান পরিবেশ অধিদফতরের মহাপরিচালক আবদুল হামিদ। ঢাকা শহর ও আশেপাশের এলাকায় বায়ুদূষণ বন্ধে মানবাধিকার ও পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ (এইচআরপিবি) জনস্বার্থে হাইকোর্টে রিট দায়ের করে। এরপর ঢাকার বায়ুদূষণ রোধে কয়েকদফা নির্দেশনা দেন হাইকোর্ট। ওই রিটের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট কয়েকটি নির্দেশনা দেন। সেগুলো হলোÑ বিশেষজ্ঞ কমিটি হঠন হওয়ার পর তাদের মতামত বিবেচনা করে বায়ুদূষণ রোধে ঢাকায় নির্মাণাধীন এলাকায় মাটি/বালি/বর্জ্য ঢেকে রাখা, সিটি করপোরেশন কর্তৃক রাস্তায় পানি ছিটানো, রাস্তা খোঁড়ার কাজে টেন্ডারের শর্ত পালন নিশ্চিত করা, কালো ধোঁয়াবাহী যান জব্দ করা ও অবৈধ ইটভাটা বন্ধ করা। সেসসব নির্দেশনা বাস্তবায়ন না হওয়ায় ৩০ জানুয়ারি হাইকোর্টে একটি সম্পূরক আবেদন দাখিল করা হয়। ওই আবেদনের সঙ্গে ঢাকার বর্তমান দূষণের মাত্রার সর্বোচ্চ পর্যায়ের অবস্থান ও অবৈধ ইটভাটা পরিচালনা সম্পর্কে মিডিয়ার সংবাদ সংযুক্ত করে ৪ দফা নির্দেশনা চাওয়া হয়। আদালতের দেওয়া একাধিক নির্দেশনা বাস্তবায়নে পদক্ষেপ না থাকায় ৫ জেলার জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) ভার্চুয়ালি সংযুক্ত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। পাশাপাশি অবৈধ ইটভাটার তালিকা দাখিলেরও নির্দেশ দেন। সেই আদেশের ধারাবাহিকতায় ডিসি ও তাদের প্রতিনিধিরা আদালতে যুক্ত হয়ে তাদের বক্তব্য পেশ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category