• রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
যশোরে তীব্র তাপপ্রবাহে গলে যাচ্ছে সড়কের বিটুমিন জাল সার্টিফিকেট চক্র: জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে কারিগরি বোর্ডের চেয়ারম্যানকে গরিবদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সংখ্যা কমছে বাড়ছে গরমজনিত অসুস্থতা, হাসপাতালে রোগীদের চাপ ড্রিমলাইনারের কারিগরি বিষয়ে বোয়িংয়ের সঙ্গে কথা বলতে মন্ত্রীর নির্দেশ গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবার জন্য গ্রামে গ্রামে ঘুরছি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ৩য় ধাপের উপজেলা ভোটেও আপিল কর্তৃপক্ষ জেলা প্রশাসক আগামী বাজেটে তামাকপণ্যের দাম বাড়ানোর দাবি জাতিসংঘে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের অগ্রগতি তুলে ধরল বাংলাদেশ দুর্নীতির অভিযোগের বিরুদ্ধে সাবেক আইজিপি বেনজীরের পাল্টা চ্যালেঞ্জ

গ্যাস অনুসন্ধান ও উন্নয়ন কার্যক্রমে আশাতীত সাফল্য পাচ্ছে বাপেক্স

Reporter Name / ৯৮ Time View
Update : রবিবার, ২৫ ডিসেম্বর, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ওাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রডাকশন কোম্পানি (বাপেক্স) গ্যাস অনুসন্ধান ও উন্নয়ন কার্যক্রমে আশাতীত সাফল্য পাচ্ছে। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত বাপেক্স মোট ৮টি অনুসন্ধান ও উন্নয়ন কূপে কাজ করেছে। আর তার সবক’টিতেই গ্যাসের সন্ধান ও সরবরাহ বেড়েছে। এ সময়ে বাপেক্স জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করার জন্য দৈনিক অন্তত ১৩৩ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উৎস বাড়িয়েছে। যদিও স্থানীয় উৎস থেকে গ্যাসের পরিমাণ কম কিন্তু সংকটময় পরিস্থিতিতে জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হওয়া ওই গ্যাস বড় ভূমিকা রেখেছে। বাপেক্সের তৎপরতায় গ্রিডে বাড়তি গ্যাস যুক্ত হওয়া বড় সাফল্য। গ্যাস সংকটে থাকা জ¦ালানি বিভাগের জন্য তা কিছুটা হলেও স্বস্তিদায়ক। জ¦ালানি বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, তীব্র গ্যাস সঙ্কট সামাল দিতে জ¦ালানি বিভাগ স্থানীয় উৎস থেকে সরবরাহ বাড়ানোর বিষয়ে উদ্যোগ নেয়। পেট্রোবাংলার লক্ষ্য হলো ২০২৫ সাল নাগাদ জাতীয় গ্রিডে ৬১৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস যুক্ত করা। তারই ধারাবাহিকতায় বাপেক্স বিভিন্ন কূপ খনন, সংস্কার ও ওয়ার্কওভারের উদ্যোগ নেয়। চলতি বছর সংস্থাটি ৮টি গ্যাসকূপে কাজ করেছে। ওসব কূপ খনন করে দৈনিক ১৩৩ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস পাওয়ার উৎস তৈরি হয়েছে ইতোমধ্যে কয়েকটি কূপের গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হয়েছে। দুই-তিন মাসের মধ্যে জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হবে বাকি কূপগুলোর গ্যাসও।
সূত্র জানায়, বাপেক্স। চলতি বছরের জুনে কুমিল্লার শ্রীকাইলে অনুসন্ধান কূপ খনন শুরু করে এবং ডিসেম্বরেই কূপের খনন কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। বর্তমানে ওই কূপ থেকে দৈনিক ২০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হওয়ার অপেক্ষা আছে। তার আগে রাশিয়ার তেল-গ্যাস অনুসন্ধানকারী প্রতিষ্ঠান গ্যাজপ্রম আগস্টে ভোলার শাহবাজপুরে বাপেক্সের সহায়তায় টবগী-১ অনুসন্ধান কূপ খননের কাজ শুরু করে। অক্টোবরে ৪ হাজার ৫২৪ মিটার গভীরতায় কূপ খননের কাজ শেষ হয়। ওই কূপ থেকেও দৈনিক ২০ মিলিয়ন ঘনফুট হারে গ্যাস পাওয়া যাবে। তাছাড়া গত মাসে শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলায় বাপেক্সপ্রাকৃতিক গ্যাসকূপ খননের কাজ শুরু করেছে। শরীয়তপুর-১ অনুসন্ধান নামে ওই কূপে ইতোমধ্যে ২০০ মিটার পর্যন্ত খননের কাজ শেষ হয়েছে। ওই কূপে ৩০ ও ২০ ইঞ্চি কেচিং স্থাপনের কাজ শেষ হয়েছে। আগামী ফেব্রুয়ারিতে খননকাজ শেষে ওই কূপ থেকে পেট্রোবাংলা সম্ভাব্য ১০ মিলিয়ন ঘনফুট হারে গ্যাস পাওয়ার আশা করছে।
সূত্র আরো জানায়, স্থানীয় অনুসন্ধান কূপের পাশাপাশি স্থানীয় গ্যাস উৎপাদন কোম্পানিগুলো বাপেক্সের মাধ্যমে পুরনো কূপেরও সংস্কার করছে। ইতোমধ্যে মোট ৪টি কূপের ওয়ার্কওভার করা হয়েছে। ওসব কূপ ওয়ার্কওভার করার মাধ্যমে জাতীয় গ্রিডে আরো ৩০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস যুক্ত হয়েছে। সিলেট গ্যাসফিল্ডের আওতায় সিলেট-৮ গ্যাসকূপের ওয়ার্কওভার চলতি বছরের জানুয়ারিতে শেষ হয়। ওই কূপ থেকে দৈনিক ৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস গ্রিডে যুক্ত হচ্ছে। তাছাড়া চলতি বছরের এপ্রিল ও নভেম্বরে এসজিএফসিএলের আরো দুটি কূপে কৈলাসটিলা-৭ ও বিয়ানীবাজার-১ এর কাজ শেষ হয়। ওই দুটি কূপ খনন শেষে জাতীয় গ্রিডে মিলেছে ২০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস। বাপেক্সওসব কূপ ওয়ার্কওভারে কাজ করেছে। তার বাইরে বাপেক্সের নিজস্ব গ্যাসকূপ সালদা-২ ওয়ার্কওভার করে দৈনিক ৩ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস গ্রিডে যুক্ত হয়েছে। আর ভোলার শাহবাজপুরে দৈনিক ৬০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ সক্ষমতা রয়েছে এমন কূপে প্রসেস প্লান্ট বসানো হয়েছে। চলতি মাসের মধ্যে ওই কূপে প্রসেস প্লান্ট সম্পন্ন করা গেলে সেখান থেকে গ্যাস উত্তোলন শুরু হবে। বাপেক্সের ওই গ্যাসকূপ থেকে পেট্রোবাংলা সিএনজিতে রূপান্তরের মাধ্যমে উত্তোলন করে গ্যাস সরবরাহের পরিকল্পনা করছে। এরইমধ্যে বাপেক্স, পেট্রোবাংলা ও সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওই গ্যাস মূল ভূখ-ে আনতে কাজ শুরু করেছে।
এদিকে তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) আমদানির জন্য কাতার ও ওমান হলো বাংলাদেশের দুটি দীর্ঘমেয়াদি উৎস। তার মধ্যে জ¦ালানি বিভাগ কাতার থেকে সবচেয়ে বেশি এলএনজি আমদানি করছে। ওই দেশটি থেকে গত দুই অর্থবছরে এলএনজি আমদানি করতে ২৩ হাজার ১৩৪ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। শুধু কাতার থেকে গত দুই অর্থবছরে যে পরিমাণ ব্যয়ে এলএনজি আমদানি করা হয়েছে, গত ১৩ বছরে বাপেক্স তার মাত্র এক-চতুর্থাংশ অর্থ পেয়েছে। বিগত ২০০৯ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত বাপেক্সের গ্যাস অনুসন্ধান ও উন্নয়নমূলক নানা ধরনের প্রকল্পে মোট ৫ হাজার ৫৭০ কোটি টাকা বিনিয়োগ হয়েছে। আর ২০২০-২১ অর্থবছরে কাতার থেকে জীবাশ্ম জ¦ালানি পণ্য আমদানিতে ব্যয় হয়েছে ৭ হাজার ৫৯৮ কোটি টাকা। ২০২১-২২ অর্থবছরে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫ হাজার ৫৩৬ কোটি টাকায়। তবে দীর্ঘমেয়াদি ও স্পট এলএনজি আমদানির অর্থ হিসাব করলে গত দুই অর্থবছরে যথাক্রমে ১৭ হাজার ৬৯২ কোটি ও ৩৮ হাজার ৬৬০ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। অর্থাৎ মোট ব্যয়ের পরিমাণ ৫৬ হাজার ৩৫২ কোটি টাকা। এলএনজি আমদানিতে বিপুল পরিমাণ অর্থ ব্যয় করেও পেট্রোবাংলা পর্যাপ্ত জ¦ালানির সংস্থান করতে পারছে না। এমন অবস্থায় পেট্রোবাংলা দেশীয় গ্যাস অনুসন্ধান ও উত্তোলনে জোর দিয়েছে। আর স্থানীয় রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানি বাপেক্সকে দিয়ে গ্যাস অনুসন্ধান ও উন্নয়ন কার্যক্রম চালিয়ে গত এক বছরে আশাতীত সাফল্য মিলেছে।
অন্যদিকে জ¦ালানি বিশেষজ্ঞদের মতে, বিশ্ববাজার থেকে যখন গ্যাস কেনা যাচ্ছে না তখন স্বল্প সময়ে বাপেক্সের তৎপরতা চোখে পড়ার মতো। সংস্থাটি গত এক বছরে সংস্কার ও অনুসন্ধান কূপে যে পরিমাণ গ্যাস পেয়েছে তা সাফল্যের তালিকাকেই ভারি করে। তবে সংস্থাটিকে আরো বড় আকারে কাজে লাগানোর সুযোগ রয়েছে। সেক্ষেত্রে জ¦ালানি বিভাগের সদিচ্ছার প্রয়োজন।
এ বিষয়ে বাপেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ আলী জানান, বাপেক্স গত এক বছরে ১০টি কূপ খনন, সংস্কার ও উন্নয়নের কাজ করেছে। অতীতে এত স্বল্প সময়ে এ ধরনের কাজ হয়নি। এ এক বছরে প্রতিটি কূপ থেকে গ্যাস পাওয়া মিলেছে এবং ইতোমধ্যে জাতীয় গ্রিডে বেশির ভাগ গ্যাস যুক্ত হয়েছে। আশা করা যায় ২০২৫ সাল নাগাদ ৬১৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাসের যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে তা পূরণ হবে। সে লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাপেক্স।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category