• শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:১১ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
স্বাস্থ্যসেবায় অভূতপূর্ব অর্জন বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছে: রাষ্ট্রপতি শান্তি আলোচনায় কেএনএফকে বিশ্বাস করেছিলাম, তারা ষড়যন্ত্র করেছে: সেনাপ্রধান বন কর্মকর্তার খুনিদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতে কাজ করছে মন্ত্রণালয়: পরিবেশমন্ত্রী পুরান ঢাকার রাসায়নিক গুদাম: ১৪ বছর ধরে সরানোর অপেক্ষা ভাসানটেক বস্তিতে ফায়ার হাইড্রেন্ট স্থাপন করা হবে : মেয়র আতিক রুমা উপজেলা সোনালী ব্যাংকের অপহৃত ম্যানেজার উদ্ধারের পর পরিবার কাছে হস্তান্তর সন্ত্রাসী দল কর্মকান্ড পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বান্দরবানে চলছে জমজমাট নাইট মিনিবার স্বাধীনতা কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট-২৪ সরকারের বাস্তবমুখী পদক্ষেপে শিশু ও মাতৃমৃত্যুর হার কমেছে: প্রধানমন্ত্রী বান্দরবানে সোনালী ব্যাংকে লুটের ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে

বিএনপিকে মোকাবিলা করা কঠিন কাজ নয়: তথ্যমন্ত্রী

Reporter Name / ৫৬ Time View
Update : সোমবার, ২ জানুয়ারি, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক :
বিএনপিকে মোকাবিলা করা আমাদের জন্য কোনো কঠিন কাজ নয় বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, বর্তমানে রাজনৈতিক ক্ষেত্রে যে চ্যালেঞ্জ সেটা হচ্ছে বিএনপির সাংঘর্ষিক রাজনীতি। তবে তারা কী করতে চায় বা কী করতে পারে সে সম্পর্কে আমাদের ধারণা আছে। সেটিকে মোকাবিলা করার জন্য আমাদের প্রস্তুতি এবং পরিকল্পনা দুটিই আছে। আজ সোমবার দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সিনেমা হল মালিক সমিতি ও সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন। নির্বাচনী বছরে দেশের রাজনৈতিক অবস্থা কেমন যাবে, চ্যালেঞ্জগুলো কী ও তা কীভাবে মোকাবিলা করবেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বর্তমানে রাজনৈতিক ক্ষেত্রে যে চ্যালেঞ্জ সেটা হচ্ছে বিএনপির সাংঘর্ষিক রাজনীতি। বিএনপির মিত্রদের দেশবিরোধী অপতৎপরতা, বিদেশিদের পদলেহন এবং বিদেশিদের কাছে ধরনা দেওয়া- এগুলো করে তারা সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে চায়। কিন্তু সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে গিয়ে এখন বিএনপি নিজেই বেকায়দায় পড়েছে। কারণ ১০ ডিসেম্বর তারা ভেবেছিল নয়াপল্টনের সামনে একটি সমাবেশ করতে পারবে, বিশৃঙ্খলা তৈরি করতে পারবে। কিন্তু সেটি তারা করতে পারেনি। ১০ ডিসেম্বরের পর বিএনপি বুঝতে পেড়েছে তাদের শক্তি ও সামর্থ্য কতটুকু। তিনি বলেন, এরপরও বিএনপি এবছর দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টা করবে। তবে আমরা তাদের সর্বোচ্চ অস্থিতিশীলতা তৈরি করার চেষ্টা ২০১৩-১৪-১৫ সালে দেখেছি। আমরা সেগুলো সুন্দরভাবে মোকাবিলা করতে পেরেছি। তথ্যমন্ত্রী বলেন, এখন সবচেয়ে বড় যে বিষয় সেটা হলো সারাবিশ্বে সংকটময় পরিস্থিতি চলছে। করোনা মহামারি চলে গিয়েছিল, দুই মাস আগেও তাই ভেবেছিলাম। কিন্তু দেখা গেলো করোনা যায়নি। চীনসহ কয়েকটি দেশে করোনা মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে। পাশাপাশি চলমান রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ পরিস্থিতিতে দেশের মানুষকে ভালো রাখা এবং সংকটময় পরিস্থিতিতে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া, সেটা অবশ্যই চ্যালেঞ্জ। গত তিন বছরও চ্যালেঞ্জ ছিল, সেটা আমরা মোকাবিলা করতে পেরেছি। আমরা আশা করছি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এ বছরও চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করতে পারবো। তিনি বলেন, মানুষ কিন্তু ভুলে যায় আগে কেমন ছিল। আমরা ক্ষমতায় আসার আগে বিদ্যুতের আওতায় ছিল মাত্র ৪০ শতাংশ। এখন বিদ্যুৎসুবিধা পায় শতভাগ। কিছুদিন আগে যখন লোডশেডিং হলো তখন মানুষ হৈ হৈ রৈ রৈ শুরু করেছিল। কিন্তু এখন আর লোডশেডিং নেই। সে খবর পত্রিকার পাতা বা টিভির খবরে নেই। তো মানুষ অতীত ভুলে যায়। আগে যে রাস্তাঘাট ছিল না, যে রাস্তায় রিকশা নিয়ে চলা দুষ্কর ছিল, এখন সেখানে গাড়ি চলে। এ বিষয়গুলো মানুষ ভুলে গেছে। ১৪ বছর আগে কি ছিল? আমরা ক্ষমতায় আসার আগে তো সব বদলে দিতে পারিনি। আর আজকে কী পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েছি সে অবস্থা মানুষকে মনে করিয়ে দিতে হবে। এক্ষত্রে আমি গণমাধ্যমের সহযোগিতা চাই। গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে সরকারকে ক্ষমতা থেকে নামানো হবে বলে বিএনপির নেতারা জানিয়েছেন, এ বিষয়ে মতামত জানতে চাইলে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির নেতারা এসমস্ত কথা প্রতিদিন বলেন। বর্তমান অবস্থা হচ্ছে বিএনপির সঙ্গে জনগণতো দূরের কথা তাদের নেতাকর্মীরাও নেই। তিনি বলেন, কর্মীরা এখন নেতাদের কাছে প্রশ্ন করে সরকার বলেছিল, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে, সেখানে আপনারা করলেন না কেন? না করে লাভ কী হলো? এটাই হচ্ছে বিএনপির নেতাদের প্রতি কর্মীদের প্রশ্ন। এখন জনগণতো দূরের কথা তাদের কর্মীরাও তাদের ডাকে সারা দিচ্ছে না। তাদের এই নেতৃত্ব কতটুকু করতে পারবে সেটা তারা ভালো জানে। মন্ত্রী বলেন, গত ডিসেম্বরে বিএনপি দুটি হঠকারী সিদ্ধান্ত নিয়েছে। একটি হচ্ছে নয়াপল্টনে সমাবেশ করার গো ধরা। সেটা করে তাদের রাজনৈতিক ক্ষতি হয়েছে। অপরটি হচ্ছে তাদের সংসদ সদস্যদের পদত্যাগ করতে বাধ্য করা। এতেও তাদের ক্ষতি হয়েছে। এই প্রশ্নই বিএনপির ভেতরে ঘোরপাক খাচ্ছে। কেন এ ধরনের হঠকারী সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো। খন্দকার মোশাররফ হোসেনরা সে সিদ্ধান্তের জবাবে দিতে পারেন না তো, এ জন্যই উচ্চবাচ্য করে কর্মীদের আস্বস্ত করতে চান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category