• শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০২:২৮ অপরাহ্ন
  • ই-পেপার
সর্বশেষ
ঈদযাত্রায় বাড়তি ভাড়া আদায় করলে ব্যবস্থা বেনজীরের অঢেল সম্পদে হতবাক হাইকোর্ট তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুয়েক সময় আমাদের ট্রলার-টহল বোটে মিয়ানমারের গুলি লেগেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম-নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান রাষ্ট্রপতির সহকর্মীকে হত্যাকারী কনস্টেবল মানসিক ভারসাম্যহীন দাবি পরিবারের বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী চেকিংয়ের জন্য গাড়ি থামানো চাঁদাবাজির অংশ নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সারা দেশে ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা কতজন জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট বান্দরবান থেকে কেএনএফের ৩১ জনকে পাঠানো হলো চট্টগ্রাম কারাগারে

ভিকারুননিসায় যমজ বোনকে ভর্তির নির্দেশ হাইকোর্টের

Reporter Name / ১৫ Time View
Update : মঙ্গলবার, ২৮ মে, ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক :
ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজে (আজিমপুরে) প্রথম শ্রেণিতে অপেক্ষমাণ তালিকাভুক্ত যমজ বোনকে ভর্তির করানোর নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে তাদের ভর্তির জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলেছেন আদালত। বিষয়টি নিশ্চিত করেন রিটকারী আইনজীবী মো. ইউনুস আলী আকন্দ। এ-সংক্রান্ত বিষয়ে এক রিটের বিষয়ে প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আজ মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যডভোকেট মো. ইউনুস আলী আকন্দ। এর আগে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজে প্রথম শ্রেণিতে ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত বহাল রেখে দেওয়া হাইকোর্টের রায়ে স্থগিতাদেশ দেননি আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালত। হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে করা পৃথক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শুনানি নিয়ে গত ২৬ মে আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালত ‘নো অর্ডার’ দিয়েছেন। আপিল বিভাগের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের চেম্বার জজ আদালত এ আদেশ দেন। বয়সসীমা লঙ্ঘিত হওয়ায় ভিকারুননিসার ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত বহাল রেখে আগে রায় দেন হাইকোর্ট। রায়ে ১৬৯ শিক্ষার্থীর শূন্য আসনে ভর্তি নীতিমালা অনুযায়ী অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে শিক্ষার্থী ভর্তি নিতে স্কুল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেওয়া হয়। ভর্তিপ্রক্রিয়া নিয়ে ভর্তি ইচ্ছুক দুই শিক্ষার্থীর অভিভাবকের করা এবং ভর্তি বাতিলের বৈধতা নিয়ে ১২০ শিক্ষার্থীর অভিভাবকের করা পৃথক দুটি রিটের চূড়ান্ত শুনানি নিয়ে গত ২১ মে এ রায় দেওয়া হয়। দুই অভিভাবকের করা রিটের পরিপ্রেক্ষিতে দেওয়া রুল যথাযথ (অ্যাবসলিউট) ঘোষণা করা হয়। ১২০ অভিভাবকের করা রিটের পরিপ্রেক্ষিতে দেওয়া রুল খারিজ (ডিসচার্জ) করা হয়। হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে ভর্তি বাতিল শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা পৃথক আবেদন করেন, যা চেম্বার জজ আদালতে শুনানির জন্য ওঠে। আদালতে তাদের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মোহাম্মদ সাঈদ আহমেদ। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাঈনুল হাসান। দুই অভিভাবকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শামীম সরদার। শামীম সরদার ওইদিন বলেন, হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে ভর্তি বাতিল হওয়া শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা পৃথক দুটি আবেদন করেন। চেম্বার জজ আদালত স্থগিতাদেশ দেননি। নিয়মিত লিভ টু আপিল করতে বলেন। ফলে হাইকোর্টের রায় ও ১৬৯ শিক্ষার্থীর শূন্য আসনে অপেক্ষামাণ তালিকা থেকে শিক্ষার্থী ভর্তি নিতে হাইকোর্টের দেওয়া আদেশ আপাতত বহাল থাকছে। নির্দিষ্ট বয়সসীমার বাইরে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে লটারিতে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী ভর্তির অভিযোগে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি ইচ্ছুক দুই শিক্ষার্থীর অভিভাবক প্রথমে একটি রিট করেন। এর প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২৩ জানুয়ারি হাইকোর্ট রুলসহ আদেশ দেন। এর ধারাবাহিকতায় প্রথম শ্রেণিতে বিধিবহির্ভূতভাবে ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল করতে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি এক স্মারকে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) নির্দেশনা দেয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে প্রথম শ্রেণির ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। শিক্ষার্থীদের ভর্তি বাতিল করার বিষয়টি জানিয়ে মাউশিতে ৪ মার্চ চিঠি পাঠায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি। ভর্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত ও ভর্তি বাতিলের বৈধতা নিয়ে ভর্তি বাতিল হওয়া শিক্ষার্থীদের ১২০ জন অভিভাবক আরেকটি রিট করেন। প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২৫ মার্চ হাইকোর্ট রুল দেন। পৃথক রুলের ওপর একসঙ্গে শুনানি শেষে গতকাল মঙ্গলবার ২১ মে রায় দেন হাইকোর্ট।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category