• সোমবার, ০৫ জুন ২০২৩, ১২:০০ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
সন্ত্রাস দমন অভিযানে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়নি বান্দরবানে সেনা প্রধান বিস্ফোরণের ঝুঁকিমুক্ত হওয়ায় বায়োগ্যাসে ঝুঁকছে গ্রাহকরা রেল দুর্ঘটনা রোধে সতর্ক থাকতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ‘পেশাদার’ ও ‘রাজনৈতিক’ সমালোচকদের প্রতি তথ্যমন্ত্রীর পৃথক বার্তা বছরে তৈরি হচ্ছে ৮ লাখ টন প্লাস্টিক বর্জ্য, পরিবেশে মিশছে ৬০% বিএম ডিপোতে বিস্ফোরণ: নিহত ফায়ার সার্ভিস সদস্যদের স্মরণ সহকর্মীদের যৌক্তিক দাবির ভিত্তিতে ১০ সংসদীয় আসনের সীমানা পরিবর্তন করা হয়েছে : ইসি নীলফামারীতে বিচারপ্রার্থীদের জন্য নির্মাণ হচ্ছে ‘ন্যায়কুঞ্জ’ বান্দরবানে প্রায় সাড়ে ৩কোটি টাকার মাদকদ্রব্য ধ্বংস সংসদীয় আসনগুলোর চূড়ান্ত সীমানার গেজেট প্রকাশ, ১০টিতে পরিবর্তন

রমজানে বিশেষ কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে: শিল্পমন্ত্রী

Reporter Name / ১০০ Time View
Update : শনিবার, ২ এপ্রিল, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
রমজানে পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণ, নকল ও নিম্নমানের পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাতকরণ রোধে অতিরিক্ত মোবাইল কোর্ট ও বিশেষ কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। তিনি বলেন, রমজানে ইফতার সামগ্রী বিক্রি/বিতরণের ওপর বিএসটিআই’র নজরদারি জোরদার করবে। পাশাপাশি দেশের আমদানি-রপ্তানি সচল রাখার স্বার্থে পণ্যের ছাড়পত্র দেওয়া, লাইসেন্স দেওয়া/নবায়ন, সার্ভিল্যান্স কার্যক্রম ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা অব্যাহত রেখেছে। এ ছাড়া সারাবছর সারাদেশে বিএসটিআই’র কার্যালয়গুলোতে জরুরি সেবা অব্যাহত রেখেছে। আজ শনিবার দুপুরে শিল্প মন্ত্রণালয় সম্মেলন কক্ষে রমজান মাসে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্যের মান নিয়ন্ত্রণে বিএসটিআই গৃহীত বিশেষ কার্যক্রম সম্পর্কে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান। শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার। এ ছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন বিএসটিআইয়ের মহাপরিচালক ড. মো. নজরুল আনোয়ারসহ শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বিভিন্ন দপ্তর/সংস্থার প্রধানরা। শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, জনসাধারণের মধ্যে মানসম্মত পণ্য সরবরাহ নিশ্চিত হয়, সে লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী ভেজাল, নিম্নমান ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছেন। বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই) দেশের একমাত্র জাতীয় মান প্রণয়নকারী সংস্থা। বিএসটিআই সবসময় নিম্নমানের/নকল খাদ্যপণ্যসহ অন্যান্য নিম্নমানের পণ্যের উৎপাদন এবং বিপণন প্রতিরোধে সোচ্চার। এ লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠানটি সারা বছর জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন এবং পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতায় ভেজালবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে থাকে। এছাড়াও ওজন ও পরিমাপে কারচুপি রোধেও বিএসটিআই আইনি ব্যবস্থা নিয়ে থাকে। মহানগরীর প্রত্যেক থানা এবং অন্যান্য জেলার কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালনের জন্য আদেশ জারি করা হয়েছে। তিনি বলেন, রমজান মাস ছাড়াও বছরব্যাপী জনসচেতনতা বাড়ানো ও মানসম্মত খাদ্যপণ্যের সরবরাহ নিশ্চিত করতে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। খাদ্যপণ্যের উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান যেমন: ড্রিংকিং ওয়াটার, ভোজ্যতেল ও বেকারি পণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধির সঙ্গে মতবিনিময় ও গণশুনানির আয়োজন। একই সঙ্গে পত্র-পত্রিকায় জনসচেতনতামূলক সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ। এ ছাড়া বিএসটিআই নিয়মিত কার্যক্রমের বাইরে প্রতিবছর ভোক্তার স্বার্থে পবিত্র রমজান মাস ও তার আগে বিশেষ কর্মসূচি-অভিযান পরিচালনা করে থাকে। রমজান উপলক্ষে খাদ্য পণ্যের মান নিয়ন্ত্রণ এবং নকল ও নিম্নমানের পণ্যের বিরুদ্ধে বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। পদক্ষেপগুলো হলো- ঢাকা মহানগরীতে বিএসটিআই’র বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পণ্যের সঠিক ওজন ও পরিমাপ নিশ্চিতকরণ এবং কারচুপি রোধে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় ছুটির দিনসহ স্বাভাবিক কার্যদিবসেও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে। ঢাকা মহানগরীর পাশ্ববর্তী জেলা ও উপজেলায় যেমন- নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, টাঙ্গাইল, নরসিংদী, গাজীপুর, কিশোরগঞ্জ, সাভার, কেরাণীগঞ্জ ও ভৈরব এলাকায় মোবাইল কোর্ট ও পরিচালনা করা হবে। এছাড়া জেলা/উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় বিএসটিআই’র সব বিভাগীয়/জেলা কার্যালয়ের মাধ্যমে প্রতিদিন মোবাইল কোর্ট ও সার্ভিল্যান্স কার্যক্রম পরিচালনার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বিএসটিআই’র সব কার্যালয়কে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রমজান মাসে জনগণকে মানসম্মত পণ্য ক্রয় এবং নকল ও নিম্নমানের পণ্য সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, ফলমূল পণ্যটি বিএসটিআই’র আওতাভুক্ত না হওয়া সত্ত্বেও মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশে ও জনস্বার্থ বিবেচনা করে বিএসটিআই ফলমূলে ফরমালিন পরীক্ষা করে থাকে। বিএসটিআই’র কর্মতৎপরতার কারণে দেশের আমদানিকৃত ফলমূলে ফরমালিনের ব্যবহার প্রায় বন্ধ হয়েছে। বিগত ৯ মাসে বিভিন্ন ধরনের ১৭৫টি ফলমূলের নমুনা বাজার থেকে ক্রয় করে ফরমালিনের উপস্থিতি পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় কোনটিতে ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category