• রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:২৬ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
জাল সার্টিফিকেট চক্র: জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে কারিগরি বোর্ডের চেয়ারম্যানকে গরিবদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সংখ্যা কমছে বাড়ছে গরমজনিত অসুস্থতা, হাসপাতালে রোগীদের চাপ ড্রিমলাইনারের কারিগরি বিষয়ে বোয়িংয়ের সঙ্গে কথা বলতে মন্ত্রীর নির্দেশ গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবার জন্য গ্রামে গ্রামে ঘুরছি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ৩য় ধাপের উপজেলা ভোটেও আপিল কর্তৃপক্ষ জেলা প্রশাসক আগামী বাজেটে তামাকপণ্যের দাম বাড়ানোর দাবি জাতিসংঘে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের অগ্রগতি তুলে ধরল বাংলাদেশ দুর্নীতির অভিযোগের বিরুদ্ধে সাবেক আইজিপি বেনজীরের পাল্টা চ্যালেঞ্জ হজযাত্রীদের স্বস্তি দিতে আমরা কাজ করছি: ধর্মমন্ত্রী

রেলপথে বাড়ছে পণ্য আমদানি

Reporter Name / ১৬৫ Time View
Update : মঙ্গলবার, ১২ জুলাই, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
প্রতিবেশী দেশ ভারত থেকে রেলপথে পণ্য আমদানি বাড়ছে। যদিও দু’দেশের মধ্যে সড়ক, নৌ, রেল এবং আকাশপথে পণ্য আমদানি-রপ্তানি হয়ে থাকে। তবে এতোদিন সড়ক দু’দেশের মধ্যে বেশিরভাগ বাণিজ্যই হতো, কিন্তু বর্তমানে রেলপথে আমদানি-রপ্তানি বেড়েছে। বিশেষ করে বেনাপোল, দর্শনা ও রোহানপুর বন্দর দিয়ে রেলপথে পণ্য বেশি আসছে। করোনা অতিমারির পর থেকেই ওই তিন বন্দর দিয়ে কনটেইনার ট্রেন সার্ভিস জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, দেশের শুল্ক স্টেশনগুলোর মধ্যে দর্শনা, রোহানপুর ও বেনাপোল বন্দর দিয়ে রেলপথে পণ্য আমদানি বেড়েছে। রেলপথেই দর্শনা ও রোহানপুর বন্দরের আমদানির সিংহভাগ হচ্ছে। আর বেনাপোল বন্দরেও রেলপথে আমদানি বেড়েছে। মূলত সীমান্তে পণ্য লোড-আনলোডের জটিলতা না থাকায় রেলপথে বাণিজ্যেই দু’দেশের ব্যবসায়ীরা বেশি আগ্রহী হচ্ছে। তাতে সময় ও খরচ কম লাগে। ফলে দেশের মধ্যে রেল সংযোগ রয়েছে যেসব জায়গায়, সেখানকার ব্যবসায়ীরা রেলপথেই আমদানি-রপ্তানিতে আগ্রহ দেখাচ্ছে।
সূত্র জানায়, ২০২০-২১ অর্থবছরে দর্শনা দিয়ে ৩ হাজার ১৪৮ কোটি টাকার পণ্য আমদানি হয়েছে। আর ২০১৯-২০ অর্থবছরে হয় ১৫৮ কোটি টাকার পণ্য আমদানি হয়। তার আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ছিল ৬৪৮ কোটি টাকার পণ্য। আমদানি পণ্যের মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের পাথর (স্টোন চিপস, বোল্ডার চিপস), চাল, ভুট্টা ইত্যাদি। দর্শনা দিয়ে শুধু আমদানি হয়। অপর পাশে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের নদিয়া জেলার গেদে। তবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের রোহানপুর বন্দর দিয়ে রেলপথে পণ্য আমদানি সবচেয়ে বেশি বেড়েছে। ওই বন্দর দিয়ে গত এক বছর ধরে ট্রেনে আমদানি শুরু হয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে রোহানপুর বন্দর দিয়ে ১৭ হাজার ৮২২ কোটি টাকার পণ্য আমদানি হয়েছে। তার আগে ২০১৯-২০ ও ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ওই বন্দর দিয়ে ১৬৭ ও ৯৯ কোটি টাকার পণ্য আমদানি হয়। ওই বন্দর দিয়ে পাথর, গম, ভুট্টা, চালসহ বিভিন্ন পণ্য আমদানি হয়। আর দেশের প্রধান স্থলবন্দর বেনাপোল দিয়েও রেলপথে পণ্য আমদানি বেড়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে বেনাপোল বন্দর দিয়ে বাংলাদেশ থেকে ভারতে রপ্তানি হয়েছে ৪ হাজার ৯২৫ কোটি টাকার পণ্য। আর একই সময়ে ভারত থেকে বাংলাদেশে আমদানি হয়েছে ২৩ হাজার ৫৯১ কোটি টাকার পণ্য। ২০১৯-২০ অর্থবছরে রপ্তানির পরিমাণ ছিল ৪ হাজার ৮৯৮ কোটি টাকা এবং আমদানি ১৭ হাজার ১৪০ কোটি টাকার পণ্য। বেনাপোল বন্দর দিয়ে বাংলাদেশ থেকে ভারতে প্রধানত তুলার বর্জ্য, পাট, পাটজাত পণ্য, তৈরি পোশাক, মাছ ইত্যাদি রপ্তানি হয়। আর ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রধানত মোটরগাড়ি ও তার বিভিন্ন যন্ত্রাংশ, বিভিন্ন ধরনের মেশিনারিজ, কাপড়, রাসায়নিক, তুলা, চাল, ফল, শিশু খাদ্য ইত্যাদি আমদানি হয়ে থাকে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category