• মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ০৭:৫১ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
অগ্নিকা- প্রতিরোধে পদক্ষেপ পর্যালোচনায় বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন হাইকোর্টের রমজানে পণ্যের দাম ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার সুযোগ নেই: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী ১০ মার্চের মধ্যে ১৫ টাকা কেজি দরে চাল পাবে ৫০ লাখ পরিবার: খাদ্যমন্ত্রী বীজে অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে: কৃষিমন্ত্রী ধানম-ির টুইন পিক টাওয়ারের ১২ রেস্তোরাঁ সিলগালা বান্দরবানে সাংবাদিকদের ২ দিন ব্যাপী আলোকচিত্র ও ভিডিওগ্রাফি প্রশিক্ষণ মজুদদারির বিরুদ্ধে ডিসিদের কঠোর হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিকে অভিযানে ডিসিদের সহায়তা চাইলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সংসদে অনির্বাচিত কেউ আসতে পারে না : স্পিকার ইসলামি শিক্ষা কেন্দ্রে মাওলানা আব্দুলাহ আনোয়ার আটক

শেষ মুহূর্তে স্বপ্নভঙ্গ বাংলাদেশের

Reporter Name / ৩৮৮ Time View
Update : বুধবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২১

স্পোর্টস ডেস্ক :
শেষ মুহূর্তে স্বপ্নভঙ্গ, বাংলাদেশের ফুটবলের সঙ্গে যেন এই শব্দগুলোর ভীষণ সখ্য। আরও একবার শেষ সময়ে এসে স্বপ্ন ভাঙলো লাল সবুজ জার্সিধারীদের। নেপালকে হারাতে পারলেই সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে যেতো। এমন সমীকরণ মাথায় নিয়ে ম্যাচের প্রথমেই এগিয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। লিডটা ধরে রেখেছিল ৮৬ মিনিট পর্যন্ত। কিন্তু শেষ মুহূর্তে এসে ভুল করে বসলো লাল সবুজের প্রতিনিধিরা। বিপজ্জনক জায়গায় নেপালের এক ফুটবলারকে ফেলে দিলেন ডিফেন্ডার সাদউদ্দিন। রেফারি পেনাল্টির বাঁশি বাজাতেই সব শেষ।
১-১ গোলে ড্র হয়ে গেলো বাংলাদেশের ফাইনাল নিশ্চিত করার ম্যাচটি। ফলে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে বিদায় হয়ে গেছে অস্কার ব্রুজনের দলের। নেপাল উঠে গেছে ফাইনালে। ম্যাচে বল দখলের লড়াইয়ে পিছিয়ে থাকলেও বেশ কয়েকটি উল্লেখযোগ্য শট নিয়েছে বাংলাদেশ। ৬ শটের মধ্যে ৪টিই ছিল লক্ষ্যে। অন্যদিকে নেপাল ৯ শট নিলেও লক্ষ্যে রাখতে পেরেছিল মাত্র তিনটি। ম্যাচের অষ্টম মিনিটেই এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। লিগপর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে গোলটি করেন সাত নম্বর জার্সিধারী সুমন রেজা। ডি বক্সের বাঁ দিক থেকে অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়ার ফ্রি কিক প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের গায়ে লেগে চলে আসে সুমন রেজার সামনে। খালি জায়গায় থাকা ফরোয়ার্ড সুমন নিখুঁত হেডারে জালের ঠিকানা খুঁজে নিতে ভুল করেননি। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় বাংলাদেশ। দ্বিতীয়ার্ধেও বেশ কয়েকটি গোলের সুযোগ তৈরি করেছিলো অস্কার ব্রুজনের শিষ্যরা। ৫৪ মিনিটে সুমন রেজা একা পেয়ে গিয়েছিলেন নেপালের গোলরক্ষককে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে গোলরক্ষকের সোজাই বল মেরে দেন এই ফরোয়ার্ড। ৬৪ মিনিটে মোহাম্মদ ইব্রাহিমের হেড পোস্টের ওপর দিয়ে চলে যায়। ৭১ মিনিটে সুমন রেজার বাঁ পায়ের দূরপাল্লার মাটি কামড়ানো শট একটুর জন্য জাল পায়নি। ৭৯ মিনিটে ঘটে দুর্ঘটনা। নেপালের একটি আক্রমণ ঠেকাতে গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো বক্স ছেড়ে অনেকটা সামনে চলে আসেন। বল তার হাতে লেগে গেলে লাল কার্ড দেখান রেফারি। এই জিকোই ম্যাচে বেশ কয়েকবার বাঁচিয়েছেন দলকে। দশজনের দলে পরিণত হওয়া বাংলাদেশ এরপরই খেই হারিয়ে ফেলে। ৮৬ মিনিটে নেপালের অঞ্জন বিসতাকে বক্সের মধ্যে ফাউল করেন সাদউদ্দিন। পেনাল্টি পায় নেপাল। ডান পায়ের শটে অঞ্জনই পরাসস্ত করেন বদলি গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানাকে। ১-১ সমতায় শেষ হয় ম্যাচ। এই জয়ে ৪ ম্যাচে ২ জয় আর ১ ড্রতে ৭ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে নেপাল। ৪ ম্যাচে এক জয়, ২ ড্রয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে থেকে শেষ করেছে বাংলাদেশ। অথচ এই একটি ম্যাচ জিততে পারলে বাংলাদেশেরও সুযোগ ছিল গ্রুপের শীর্ষে থেকে ফাইনাল নিশ্চিত করার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category