• রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৯:৩২ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
যশোরে তীব্র তাপপ্রবাহে গলে যাচ্ছে সড়কের বিটুমিন জাল সার্টিফিকেট চক্র: জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে কারিগরি বোর্ডের চেয়ারম্যানকে গরিবদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সংখ্যা কমছে বাড়ছে গরমজনিত অসুস্থতা, হাসপাতালে রোগীদের চাপ ড্রিমলাইনারের কারিগরি বিষয়ে বোয়িংয়ের সঙ্গে কথা বলতে মন্ত্রীর নির্দেশ গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবার জন্য গ্রামে গ্রামে ঘুরছি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ৩য় ধাপের উপজেলা ভোটেও আপিল কর্তৃপক্ষ জেলা প্রশাসক আগামী বাজেটে তামাকপণ্যের দাম বাড়ানোর দাবি জাতিসংঘে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের অগ্রগতি তুলে ধরল বাংলাদেশ দুর্নীতির অভিযোগের বিরুদ্ধে সাবেক আইজিপি বেনজীরের পাল্টা চ্যালেঞ্জ

সোনাদিয়া-টেকনাফে উন্নয়নকাজে ব্যয় ১৯১৩ কোটি

Reporter Name / ৮০ Time View
Update : মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :
বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে চট্টগ্রামের মিরসরাই ও সন্দ্বীপ অংশে এবং কক্সবাজারের সোনাদিয়া ও টেকনাফ অংশে জেটিসহ অন্যান্য উন্নয়নমূলক কাজ করবে সরকার। ফলে আশপাশের বিভিন্ন জেলা থেকে মালামাল পরিবহন সহজ হবে। সেই সঙ্গে পর্যটকদের জন্য বাড়বে নানা সুবিধা। এ কাজে এক হাজার ৯১৩ কোটি টাকা ব্যয় হবে। এই প্রকল্পের নাম দেওয়া হয়েছে ‘চট্টগ্রামের মিরসরাই ও সন্দ্বীপ, কক্সবাজারের সোনাদিয়া দ্বীপ ও টেকনাফ (সাবরাং ও জালিয়ার দ্বীপ) অংশের জেটিসহ আনুষঙ্গিক স্থাপনাদি নির্মাণ’। প্রকল্পটি ২০২৪ সালের জুন নাগাদ বাস্তবায়ন হবে। এতে অর্থায়ন করবে সরকার। উল্লেখিত প্রকল্পের আওতায় এ উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)। প্রকল্পের প্রধান কার্যক্রম হলোÑ ২৫ দশমিক ৮৬ একর ভূমি অধিগ্রহণ, ৩ দশমিক ৯৫ লাখ ঘনমিটার ভূমি উন্নয়ন, ২৩ হাজার ৪৮৮ বর্গমিটার বন্দর ভবন, ২৩ হাজার ৪৮৮ বর্গমিটার ইনডোর নন স্ট্রাকচারাল ফিনিশিং, ৭৫ হাজার ৪৮০ দশমিক ৬০ বর্গমিটার আরসিসি জেটি নির্মাণ। এছাড়া ৩ হাজার ৮৩০ বর্গমিটার বাউন্ডারি ওয়াল, ৮ হাজার ৪৮৫ বর্গমিটার পার্কিংইয়ার্ড, ২৪ হাজার বর্গমিটার সংযোগ বা প্রবেশসড়ক, ৩ লাখ ৬৬ হাজার ৬৩০ ঘনমিটার খনন সুবিধা (উন্নয়ন ও সংরক্ষণ), ৫ হাজার ৬৫ বর্গমিটার কাঠের জেটি ও অ্যাকসেসওয়ে, ৩০০ মিটার ব্রেক ওয়াটার এবং ১৪টি নৌ সহায়ক যন্ত্রপাতি কেনা। পরিকল্পনা বিভাগের সচিব মো. মামুন আল রশীদ বলেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে কক্সবাজার, টেকনাফ, কুতুবদিয়া, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের আশপাশের জেলার লোকজনের মালামাল পরিবহন ও যাতায়াত খরচ কমবে এবং সময় বাঁচবে। এ ছাড়া প্রস্তাবিত বন্দর এলাকায় মালামালের সুষ্ঠু ও নিরাপদ উঠানামা নিশ্চিতে প্রকল্পটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এমনকি পর্যটকদের জন্যও তৈরি হবে নানা সুবিধা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category