• বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৪:১১ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
এএসপি আনিস হত্যা মামলায় বাবার সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই: শেখ হাসিনা আগামী বাজেটে মূল্যস্ফীতি রোধে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হবে: অর্থ প্রতিমন্ত্রী অ্যামাজন-শেভরন-বোয়িং বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী: বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী অবৈধ সম্পদ অর্জন: স্ত্রীসহ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা জলবায়ুর ঝুঁকি মোকাবেলা আন্তর্জাতিক সহায়তার আহ্বান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বেনজীর-আজিজকে সরকার প্রটেকশন দেবে না: সালমান এফ রহমান ভিকারুননিসায় যমজ বোনকে ভর্তির নির্দেশ হাইকোর্টের এবারও ধরাছোঁয়ার বাইরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটি পটুয়াখালীর দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

২০৩০ সালের মধ্যে ১০ বিলিয়ন ডলার ডেনিম পণ্য রপ্তানির দিকে নজর রপ্তানিকারকরদের

Reporter Name / ১৪ Time View
Update : বুধবার, ৮ মে, ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক :
উদ্ভাবনী ডিজাইন এবং পরতে আরামদায়ক হওয়ার কারণে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ডেনিম এবং ডেনিম-সম্পর্কিত পণ্যের চাহিদা বেড়েছে। পণ্যের গুণমান ও টেকসই উৎপাদন প্রক্রিয়ার কারণে বাংলাদেশ থেকে আরও বেশি সোর্সিং করতে আগ্রহী হয়ে উঠেছে আন্তর্জাতিক খুচরা ডেনিম বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান ও ব্র্যান্ডগুলো। এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহ আন্তর্জাতিক পরিম-লে আগ্রহ বৃদ্ধি দেশের ডেনিম প্রস্তুতকারকদের জন্য উজ্জ্বল সম্ভাবনার ইঙ্গিত দিচ্ছে। উদ্যোক্তারা বলেছেন যে তাদের কঠোর পরিশ্রম এবং উদ্ভাবনী ধারণা বিশ্ব বাজারে তাদের অবস্থানে পৌঁছাতে সহায়তা করেছে। উদ্যোক্তারা আরও জানান, এক দশকে দেশের ডেনিম শিল্পে তাদের বিনিয়োগ ৮ হাজার কোটি টাকা থেকে ২৬ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। স্প্যারো অ্যাপারেলস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শোভন ইসলাম জানান, বাংলাদেশ বর্তমানে ৪৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের মোট তৈরি পোশাক রপ্তানির ১৪ শতাংশ ডেনিম পণ্য রপ্তানি করে। তিনি জানান, আমরা ডেনিম রপ্তানিতে শীর্ষ অবস্থানে আছি এবং আমাদের মার্কেট শেয়ার এখন ৮%। তবে আমরা এখন ৮ বিলিয়ন ডলার থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে ১০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করতে চাই। বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিজিএমইএ) সদস্য শোভন ইসলাম বলেন, দেশে বর্তমানে ৪০টি ডেনিম ফ্যাব্রিক মিল রয়েছে। ডেনিম খাতে উদ্যোক্তারা ২৬,০০০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছে এবং এই খাতের প্রবৃদ্ধি বার্ষিক ৫%। বর্তমানে ৬০% কাঁচামাল স্থানীয় উৎস থেকে সংগ্রহ করা হয়। কোম্পানির প্রধান রপ্তানিযোগ্য পণ্য হল বেসিক মহিলাদের ব্লাউজ বোনা শীর্ষ, আন্ডারওয়ার, প্যান্ট, শার্ট, জ্যাকেট এবং ট্রাউজার। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশ ২০২২-২৩ অর্থবছরে ৪৬,৯৯১.৬১ মিলিয়ন ডলারের তৈরি পোশাক (আরএমজি) রপ্তানি করেছে। এর মধ্যে নিটওয়্যার ছিল ২৫,৭৩৮.২০ মিলিয়ন এবং বোনা পোশাক ২১,২৫৩.৪১ মিলিয়ন।
ভাল মার্জিন, ভাল ভবিষ্যত
গত সোমবার বাংলাদেশ ডেনিম এক্সপোর ১৬ তম সংস্করণের একটি সেমিনারে ডেনিম বিশেষজ্ঞরা বিশ্বব্যাপী ডেনিম বাজারের অপ্রয়োজনীয় সম্ভাবনা গ্রহণের জন্য টেকসই, আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার এবং ডেটা প্রাপ্যতা নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দিয়েছেন। অনন্ত গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শরীফ জহির বলেন, ডেনিম কোম্পানির প্রথম পণ্য। এটি একটি ভাল মার্জিন এবং একটি ভাল ভবিষ্যত আছে। বাংলাদেশ ইতোমধ্যে পণ্য রপ্তানিতে শীর্ষস্থান অর্জন করেছে। কিন্তু জ্ঞান, তথ্য এবং সম্মতির অভাব রয়েছে, তিনি বলেন। জহির যোগ করেন, পণ্যের প্রতিযোগিতামূলক মূল্য, টেকসইতা, পুনর্ব্যবহারযোগ্য এবং নতুন প্রযুক্তি উদ্যোক্তাদের জন্যও চ্যালেঞ্জ। তিনি উল্লেখ করেন যে স্থানীয় বিনিয়োগকারীরা সুযোগ নিতে ডেনিম খাতে বিনিয়োগ করছেন। এমঅ্যান্ডজে গ্রুপের পরিচালক মুনির আহমেদ বলেন, উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়ায় তাদের চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হচ্ছে। আন্তর্জাতিক বাজারে ডেনিমের বাজার বাড়ছে। ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে আমাদের এটি গ্রহণ করার সুবিধা রয়েছে। এখন, আমাদের ভাবমূর্তি উন্নত করা এবং নতুন বাজারে সম্প্রসারণ করা উচিত,” তিনি যোগ করেন। ঊর্মি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আসিফ আশরাফ বলেন, বাংলাদেশ ৭৫ শতাংশ তুলা তৈরি পণ্য রপ্তানি করছে। তিনি যোগ করেন, দেশে ম্যানমেইড ফাইবার (এমএমএফ) পণ্য রপ্তানির অনেক সুযোগ রয়েছে। আমাদের কঠোর পরিশ্রমের জন্য আমরা আরএমজি রপ্তানিতে দ্বিতীয় অবস্থান এবং আন্তর্জাতিক বাজারে ডেনিম আইটেম রপ্তানিতে শীর্ষস্থান অর্জন করেছি। এখন আমাদের এমএমএফ আইটেমগুলি প্রসারিত করতে সরকারের কাছ থেকে নীতিগত সহায়তা প্রয়োজন। পাশাপাশি, আমাদের ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ ইন্ডাস্ট্রিকে শক্তিশালী করতে হবে,” তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন। টেক্স ফাস্টেনারসের সিইও দীপক শাহ বলেন, ডেনিম পণ্য তৈরিতে ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়। উদ্যোক্তাদের পরিবেশগত সমস্যা এবং স্থায়িত্বের উপর ফোকাস করা উচিত।
সক্ষমতা বাড়াচ্ছে অ্যাকসেসরিজ ও কেমিক্যাল সরবরাহকারীরাও
বাংলাদেশে চীনা মেটাল ট্রিম উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান চেরি বাটন লিমিটেডের বার্ষিক টার্নওভার ৮ মিলিয়ন ডলার। প্রতিষ্ঠানটির বিজনেস ডেভেলপমেন্টের প্রধান মাহমুদুল হাসান বলেন, বাংলাদেশের বাজারে প্রবৃদ্ধির বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। নিজেদের কোম্পানির অভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাজারের সুযোগ কাজে লাগাতে তারা ২০১৯ সালে এখানে বিনিয়োগ করেছে। এর আগে তারা চীন থেকে আমদানি করত। গত বছর তাদের ব্যবসার প্রবৃদ্ধি প্রায় ২৯ শতাংশ ছিল বলে জানান মাহমুদুল। তিনি বলেন, ‘আমরা আদমজী রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলে আরেকটি কারখানা স্থাপনের জন্য ১০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করছি। কারখানাটিতে চলতি বছরের মধ্যেই উৎপাদন শুরু হবে।’ আরেক কেমিক্যাল কোম্পানি আরএনটি (বিডি) লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার মোহাম্মদ ওয়াহিদুল আলম বলেন, ডেনিমের বাজার বাড়ছে। তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে ডেনিমের ব্যবসা বাড়ছে তিনটি কারণে-কম দাম, গুণমান ও উচ্চ সক্ষমতা। ডেনিম কাপড় ধোয়ার কাজে পানির ব্যবহার কমাতে স্থানীয় মিলাররা নতুন ওয়াশিং ও ডাইং প্রযুক্তি গ্রহণ আনছেন। উদাহরণ দিতে গিয়ে এই ব্যবসায়ী বলেন, অনেক ডেনিম মিলার এখন এক কেজি কাপড় ধোয়ার জন্য সাত থেকে আট লিটার পানি ব্যবহার করে; আগে ব্যবহার করত প্রায় ৩৫০ লিটার পানি। ওয়াহিদুল আলম আরও বলেন, মিলারদের চাহিদা বেশি থাকায় তার ব্যবসা ১৫ শতাংশের বেশি বেড়েছে।
বাজারের কিছু চ্যালেঞ্জ
বৈশ্বিক ডেনিম সরবরাহে বাংলাদেশ এখন চূড়া স্পর্শ করেছে। অনেক গ্রাহক ইতোমধ্যে এদেশ থেকে সোর্সিংয়ের সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছে গেছে। শরীফ জহির বলেন, কিছু খুচরা বিক্রেতা ইতিমধ্যেই একটি দেশের ওপর নির্ভরতা কমানোর কৌশল বাস্তবায়ন করেছে। ঝুঁকি কমাতে তারা সোর্সিং স্থানান্তর করেছে। অন্যদিকে কিছু স্থানীয় নির্মাতাও বাজার সম্পর্কে সঠিকভাবে না জেনে উৎপাদন সক্ষমতা বাড়াতে বিনিয়োগ করছে, যা আরেকটি চ্যালেঞ্জ তৈরি করছে, বলেন তিনি। অন্যদিকে চীনা ফাস্ট ফ্যাশন খুচরা বিক্রেতা শিন অন্যান্য খুচরা বিক্রেতাদের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে; কারণ শিন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে ৪-৫ ডলারে ডেনিম বিক্রি করতে পারে। তাদের সরবরাহ চেইন ঠিকমতো শনাক্ত করা যায় না। শিন কোন কারখানা থেকে পণ্য তৈরি করে, তা কেউ জানে না। স্বভাবতই মানুষ সস্তা পণ্য কেনে। এর ফলে ফাস্ট ফ্যাশন চ্যালেঞ্জিং হয়ে উঠছে বলে মন্তব্য করেন শরীফ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category