• রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ১১:০১ পূর্বাহ্ন
  • ই-পেপার
সর্বশেষ
ঈদযাত্রায় বাড়তি ভাড়া আদায় করলে ব্যবস্থা বেনজীরের অঢেল সম্পদে হতবাক হাইকোর্ট তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুয়েক সময় আমাদের ট্রলার-টহল বোটে মিয়ানমারের গুলি লেগেছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম-নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান রাষ্ট্রপতির সহকর্মীকে হত্যাকারী কনস্টেবল মানসিক ভারসাম্যহীন দাবি পরিবারের বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী চেকিংয়ের জন্য গাড়ি থামানো চাঁদাবাজির অংশ নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সারা দেশে ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গা কতজন জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট বান্দরবান থেকে কেএনএফের ৩১ জনকে পাঠানো হলো চট্টগ্রাম কারাগারে

তুরস্কে খনি বিস্ফোরণে ২৫ জন নিহত, আটকা বহু

Reporter Name / ১২৯ Time View
Update : শনিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২২

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
তুরস্কের উত্তরাঞ্চলে একটি কয়লা খনিতে শক্তিশালী বিস্ফোরণে অন্তত ২৫ জন মারা গেছেন। ভেতরে আটকা পড়েছেন আরও কয়েক ডজন শ্রমিক। তাদের জীবিত উদ্ধারে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন উদ্ধারকারীরা। শুক্রবার (১৪ অক্টোবর) দেশটির বার্তিন প্রদেশের আমাসরা শহরে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টার (বাংলাদেশ সময় রাত ৯টা) দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

বার্তিন প্রদেশের গভর্নর নুরতাক আর্সলান শনিবার ভোরে জানিয়েছেন, বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৫ জনে পৌঁছেছে। এখন পর্যন্ত ৩৬ জন খনিশ্রমিককে উদ্ধার করা হয়েছে। আহত ছয়জনকে চিকিৎসার জন্য ইস্তাম্বুলে পাঠানো হয়েছে।

তুর্কি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুলেমান সোয়লু শুক্রবার গভীর রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, সব মিলিয়ে আমাদের ১১০ জন ভাই (খনির ভেতরে) কাজ করছিলেন। তাদের মধ্যে কেউ কেউ নিজেরাই বেরিয়ে আসেন এবং কয়েকজনকে উদ্ধার করা হয়।

তিনি বলেন, কিছু শ্রমিক মাটির ৩৫০ মিটার গভীরে এবং ৪৪ জন ৩০০ মিটার গভীর আরেকটি স্থানে আটকা পড়েছেন। তাদের উদ্ধারের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

জানা গেছে, শুক্রবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টা ১৫ মিনেটে কৃষ্ণসাগর উপকূলীয় বন্দরনগরী আমাসরার একটি খনির ৩০০ মিটার গভীরে প্রচণ্ড বিস্ফোরণ ঘটে।

তুরস্কের ম্যাডেন ইজ খনি শ্রমিক ইউনিয়ন এ বিস্ফোরণের জন্য মিথেন গ্যাসকে দায়ী করেছে। তবে অন্য কর্মকর্তারা বলছেন, দুর্ঘটনার কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর সময় এখনো আসেনি।

টেলিভিশনে প্রচারিত ছবি ও ভিডিওতে ঘটনাস্থলের পাশে উদ্বিগ্ন জনতার ভিড় দেখা গেছে। চোখে অশ্রু নিয়ে স্বজনদের খোঁজে একটি সাদা রঙের ভবনের সামনে সমবেত হয়েছেন তারা। সেখানে সারিবদ্ধভাবে একাধিক অ্যাম্বুলেন্সও দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান বলেছেন, তিনি সব কর্মসূচি বাতিল করে শনিবার দুর্ঘটনাস্থলে যাবেন। এক টুইটে এরদোয়ান বলেন, আমরা আশা করছি, প্রাণহানি আর বাড়বে না, আমাদের খনি শ্রমিকদের জীবিত পাওয়া যাবে।

তুরস্কের ইতহাসে সবচেয়ে প্রাণঘাতী খনি দুর্ঘটনা ঘটেছিল ২০১৪ সালে। ওই বছর দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর সোমায় একটি খনিতে বিস্ফোরণে ৩০১ জন শ্রমিক মারা যান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category